Home খেলাধুলা টেস্ট ও সাদা বলে নিউ জিল্যান্ডের আলাদা কোচ দিতে হবে: স্টেড

টেস্ট ও সাদা বলে নিউ জিল্যান্ডের আলাদা কোচ দিতে হবে: স্টেড

by বাংলা টুডে ডেস্ক
১১৬ views

স্পোর্টস ডেক্স:

আধুনিক ক্রিকেটে টেস্ট ও সীমিত ওভারের সংস্করণে আলাদা কোচিং স্টাফের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা হয় প্রায় সময়ই। বেশ কয়েকটি দলে আছেও সংস্করণ ভেদে আলাদা কোচ। নিউ জিল্যান্ড দলের জন্যও এখন সেই সময় এসে গেছে বলে মনে করেন দলটির কোচ গ্যারি স্টেড।

নিউ জিল্যান্ডের প্রধান কোচ হিসেবে ২০১৮ সালে মাইক হেসনের স্থলাভিষিক্ত হন স্টেড। তার কোচিংয়ে ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলা কিউইরা আইসিসি টেস্ট চাম্পিয়নশিপের উদ্বোধনী আসরের শিরোপা জিতে নেয় ২০২১ সালে। এই বছরের শেষ দিকে ভারতে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপের পর শেষ হয়ে যাবে স্টেডের চুক্তির মেয়াদ।

বৈশ্বিক আসরের পরও দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। ওয়েলিংটনে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সামনে ৫১ বছর বয়সী এই কোচ তুলে ধরলেন নিউ জিল্যান্ড ক্রিকেটে টেস্ট ও সীমিত ওভারের দুই সংস্করণে আলাদা কোচের প্রয়োজনীয়তার কথা। “আমি মনে করি, এখনই সময় (সংস্করণে ভেদে আলাদা কোচ) বিষয়টি আলাদা করে ভাবার ও দেখার।

আধুনিক ক্রিকেটে খেলোয়াড় ও কোচদের পক্ষে পুরো সময়কাল এবং নিউ জিল্যান্ড ক্রিকেট জুড়ে সবকিছু ধরে রাখা ও টিকিয়ে রাখা খুব কঠিন হয়ে উঠছে। অবশ্যই বিকল্প হিসেবে আমি এটি নিয়ে কথা বলছি।” শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সোমবার দ্বিতীয় টেস্ট ইনিংস ব্যবধানে জিতে ২-০তে সিরিজ জয়ে শেষ হয়েছে নিউ জিল্যান্ডের ঘরের মাঠে এই গ্রীষ্মের টেস্ট অভিযান।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা ধরে রাখার আশা শেষ হয়ে গেছে তাদের আগেই। এই চক্রে নিজেদের সবশেষ তিন টেস্টেই জেতা দলটির আশা এখন পরবর্তী চক্র ঘিরে। স্টেডের মনোযোগ এখন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির সিরিজের দিকে। যার শুরুটা হবে আগামী শনিবার অকল্যান্ডে পঞ্চাশ ওভারের ম্যাচ দিয়ে।

আগামী অক্টোবর-নভেম্বরের বিশ্বকাপের পর বাংলাদেশ সফরের সময়ও নিউ জিল্যান্ডের টেস্ট দলের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী স্টেড। আবার নিউ জিল্যান্ডের বোর্ড তাকে সাদা বলের দলের দায়িত্বে চাইলেও কাজ চালিয়ে যেতে চান তিনি।

আরো পড়ুন

সম্পাদক: শুভ্র মেহেদী

মোবাইল: ০১৯৮৫৮২৭৮৩০
ই-মেইল: jamalpur.banglatoday.2022@gmail.com

মিডিয়া ক্যাম্পাস, পৌরসুপার মার্কেট (২য় তলা), রানীগঞ্জ বাজার, তমালতলা, জামালপুর।

Developed by Media Text Communications