rockland bd

বাংলাদেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের প্রাথমিক লক্ষণ দেখাচ্ছে : বিশ্বব্যাংক

0

বিদেশ ডেস্ক, বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর: বিশ্বব্যাংকের এক নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রপ্তানী ফিরে আসা, অভ্যন্তরীণ রেমিটেন্স প্রবাহ শক্তিশালী এবং চলমান টিকাকরণ কর্মসূচির কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের নতুন লক্ষণ দেখাচ্ছে।
‘বাংলাদেশ ডেবেলপমেন্ট আপডেট-মুভিং ফরোয়ার্ড : কানেক্টিভিটি এন্ড লজিস্টিকস টু স্ট্রেন্থ কম্পিটিটিভনেস’ শীর্ষক প্রতিবেদনটি আজ ভার্চুয়াল মিডিয়া ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়।
কোভিড-১৯ মহামারী দ্বারা মারাত্মকভাবে প্রভাবিত হওয়ার পর প্রবৃদ্ধিকে ধীর করে দেয় এবং দুই দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো দারিদ্র্য হ্রাসের প্রবণতাকে কিছুটা বিপরীত করে দেয়া অর্থনীতি ধীরে ধীরে পুনরুদ্ধার করছে।
বাংলাদেশ ও ভুটানের বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন আজ উদ্বোধনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন। অপরদিকে বিশ্বব্যাংকের দুই জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ বার্নার্ড জেমস হ্যাভেন এবং মাতিয়াস হেরেরা দাপ্পে দুটি পৃথক মূলভাব উপস্থাপনা করেন।
মার্সি মিয়াং টেম্বন বলেন, কোভিড-১৯ এর অনিশ্চয়তা সত্ত্বেও বাংলাদেশের অর্থনীতির দৃষ্টিভঙ্গি ইতিবাচক। পুনরুদ্ধারের বেশিরভাগ গতি নির্ভর করবে কত দ্রুত গণ টিকাকরণ করা যায় তার উপর। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক একটি স্থিতিশীল পুনরুদ্ধারকে সমর্থন করবে, যা বাংলাদেশকে সবুজ, আধুনিক এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়তা করবে।
২০২১ অর্থবছরে বিশ্বব্যাংক বলেছে, চলমান টিকাকরণ অভিযানের গতি, গতিশীলতা সীমাবদ্ধতার পরিমাণ ও সময়কাল এবং বিশ্ব অর্থনীতি কত দ্রুত পুনরুদ্ধার করে তার উপর নির্ভর করে বাংলাদেশের প্রকৃত জিডিপি প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ৬ থেকে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে।
ঋণদাতা সংস্থা বলেছে, রপ্তানি চাহিদা জোরদার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উৎপাদনে পুনরুদ্ধার, বেসরকারী বিনিয়োগ ত্বরান্বিত করণের মাধ্যমে নির্মাণে প্রত্যাবর্তন এবং টিকাকরণ প্রচারণার অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে শক্তিশালী সেবা খাতের প্রবৃদ্ধি দ্বারা প্রবৃদ্ধি সমর্থন করা হবে। মুদ্রাস্ফীতি বাংলাদেশ ব্যাংকের ৫ দশমিক ৫ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি থাকবে বলে অনুমান করা হচ্ছে এবং রাজস্ব ঘাটতি জিডিপির ৬ শতাংশে থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
কোভিড-১৯-এর এই কঠিন সময়ে দেশটি কি কি চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হবে জানতে চাইলে মার্সি বলেন, সমস্যাটি চ্যালেঞ্জ নিয়ে নয়, বরং দেশ এগিয়ে যাওয়ার জন্য কি করবে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের বেশ কয়েকটি কৌশল দরকার… এটি সবুজ, স্থিতিশীল এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নের উপর জোর দেবে।
বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, অপুষ্টি, দৃষ্টি আকর্ষণের কৌশল এবং সবার জন্য উন্নত স্বাস্থ্য সেবা মোকাবেলায় অনেক প্রচেষ্টার প্রয়োজন রয়েছে।
এছাড়াও, তিনি ডিজিটাল প্রযুক্তি ত্বরান্বিত করার, স্থানীয় সরবরাহের চেইন, লজিস্টিক্স, সংযোগ এবং জীব বৈচিত্র্যের উন্নতির উপর জোর দিয়েছেন।
সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালের চাওয়া সম্ভাব্য ৫শ’ মিলিয়ন ডলারের বাজেট সহায়তার অগ্রগতি সম্পর্কে আরেক প্রশ্নের জবাবে মার্সি টেম্বন বলেন, সংশ্লিষ্ট বিশ্বব্যাংক দল ইতোমধ্যে এ বিষয়ে কাজ করছে এবং এই মিশনের শেষে এটি চূড়ান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে এর জনগণ এবং এর জন্য তাদের সুস্থ, শিক্ষিত এবং একটি ভালো জীবিকা থাকা দরকার।
এই মহামারী পরিস্থিতিতে দরিদ্রদের রক্ষায় সরকারের পদক্ষেপ সম্পর্কে আরেক প্রশ্নের জবাবে কান্ট্রি ডিরেকটর বলেন, মহামারী আঘাত হানার সময় বাংলাদেশ অত্যন্ত ভালো কাজ করেছে এবং এই ধাক্কা সত্ত্বেও জনগণকে কর্মসংস্থানে রাখার জন্য তারা বেশ কিছু উদ্দীপনা প্যাকেজও চালু করেছে।
এছাড়াও, তিনি বলেন, নগদ হস্তান্তরের মতো অনেক সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে এবং সরকারের পুরো অভিযানটি ছিল দরিদ্রদের ক্ষুধায় যেনো ভুগতে না হায় তা নিশ্চিত করা।
টেম্বন বলেন, দরিদ্রদের যতœ নেয়ার ক্ষেত্রে সরকারের ভালো কর্মক্ষমতা ছিল। সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা এই খারাপ সময়ে মানুষকে সাহায্য করেছে এবং তাদেরকে চাকরিতে রাখতেও সাহায্য করেছে।
ঋণদাতা সংস্থা এবার একটি নির্দিষ্ট সংখ্যার পরিবর্তে বৃহত্তর প্রবৃদ্ধির পরিসরে প্রক্ষেপণের কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে টেম্বন বলেন, প্রবৃদ্ধির সংখ্যা এখন ঘটে যাওয়া অন্যান্য অনেক বিষয়ের উপর নির্ভর করে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশে আভ্যন্তরীণ রেমিটেন্স যদি তার শক্তিশালী ও স্থিতিস্থাপক প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রাখে, তাহলে এই অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি প্রায় ৫ শতাংশ হতে পারে।
২০২১ অর্থবছরের প্রথমার্ধে বিশ্বব্যাংক বলেছে, কারখানাগুলো পুনরায় চালু হয়েছে এবং রপ্তানী ফিরে এসেছে। চলমান কোভিড-১৯ মহামারীর প্রেক্ষাপটে অর্থনীতি উচ্চ ঝুঁকির সম্মুখীন হয়।
দেশের দুটি বৃহত্তম শহর ঢাকা ও চট্টগ্রমে সাম্প্রতিক জরিপে ২০২১ অর্থবছরের প্রথমার্ধে শ্রম বাজারে পুনরুদ্ধারের দিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে। ধীরে ধীরে জীবিকা পুনরুদ্ধারের সঙ্গে সঙ্গে দরিদ্র ও বস্তি এলাকায় খাদ্য নিরাপত্তা উন্নত হয়। চট্টগ্রামে, ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারির মধ্যে কর্মরত প্রাপ্তবয়স্কদের শতকরা হার কোভিড-১৯ পূর্ব স্তরে ফিরে এসেছে।
একটি ভঙ্গুর বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার তৈরি পোশাক পণ্যের চাহিদা হ্রাস এবং অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য কাজের সুযোগ সীমিত করতে পারে। কোভিড-১৯ মহামারী অনাদায়ী ঋণ এবং ব্যাংক প্রশাসন এবং ঝুঁকি ব্যবস্থাপনায় দুর্বলতা থেকে উদ্ভূত আর্থিক খাতের ঝুঁকিকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে।
লজিস্টিক কর্মক্ষমতা উন্নত করা পুনরুদ্ধার ত্বরান্বিত এবং প্রতিযোগিতামূলকতা উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে। প্রতিবেদনে ব্যবসার ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করতে এবং স্থিতিশীলতা গড়ে তুলতে লজিস্টিক সিস্টেমের আধুনিকীকরণের সুযোগের রূপরেখা দেয়া হয়েছে।
লজিস্টিক দক্ষতা বাডানোর জন্য একটি সিস্টেম-প্রশস্ত কৌশলের মাধ্যমে এটি অর্জন করা যেতে পারে, অবকাঠামোর মান, ক্ষমতা এবং ব্যবস্থাপনা উন্নত করা, লজিস্টিক পরিসেবাগুলোর গুণগত মান এবং সংহতকরণ উন্নত করন এবং আঞ্চলিক লজিস্টিক পরিসেবাগুলোর একটি বিরামহীন সংহতকরণ অর্জন।
এছাড়াও, ঋণদাতা সংস্থা কিছু মূল অগ্রাধিকারের পরামর্শ দিয়েছে যার মধ্যে রয়েছে সরকারী রাজস্ব বৃদ্ধি, রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনা, আর্থিক খাতের দুর্বলতা সমাধান, নগরায়নের পুনর্ভারসাম্য এবং ব্যবসায়িক পরিবেশের উন্নতি।
বিশ্ব ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ এবং প্রতিবেদনের সহ-লেখক বার্নার্ড হ্যাভেন বলেন, কোভিড-১৯ মহামারীর ফলে বিশ্ব মন্দা দেখা দিয়েছে। মহামারী দ্বারা প্রভাবিত পরিবারগুলোকে রক্ষা করা একটি জরুরি অগ্রাধিকার হিসাবে রয়ে গেছে। অন্যদিকে কাঠামোগত সংস্কারপুনরুদ্ধারকে ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করতে পারে।
এক প্রশ্নের উত্তরে বার্নার্ড বলেন, লকডাউন কর্মসংস্থানের উপর প্রভাব ফেলবে এবং এজন্য সরকার ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সহায়তায় কিছু অতিরিক্ত কর্মসূচি গ্রহণ করবে।
বাংলাদেশ উন্নয়ন আপডেট দক্ষিণ এশিয়া অর্থনৈতিক ফোকাসের একটি সহযোগী অংশ, যা দুই বছরের বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সম্ভাবনাগুলো পরীক্ষা করে এবং দেশগুলোর দ্বারা নীতিগত চ্যালেঞ্জগুলোর বিশ্লেষণ করে।
২০২১ সালের ৩১ মার্চ তারিখে চালু হওয়া দক্ষিণ এশিয়া টিকা শিরোনামের স্প্রিং ২০২১ সংস্করণে দেখা যাচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পিছিয়ে আসছে, তবে প্রবৃদ্ধি অসম, পুনরুদ্ধার নাজুক এবং অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি অনিশ্চিত। প্রতিবেদনে টিকাদানের বিভিন্ন মাত্রার উপরও আলোকপাত করা হয়েছে এবং এই অঞ্চলে টিকা দেয়ার একটি ব্যয়-সুবিধা বিশ্লেষণ করা হয়েছে। খবর বাসসর।
আস / বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর

Comments are closed.