rockland bd

সালিশে সুবিচার না পেয়ে রহনপুরে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

0

গোমস্তাপুর(চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি, বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর: চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুরে গত ১ সেপ্টেম্বর গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করা স্কুলছাত্রী সাম্মির আত্মহনের নেপথ্যে সালিশে সুবিচার না পাওয়ার বেদনা কাজ করেছে বলে অনুসন্ধানে বের হয়ে এসেছে। অনুসন্ধানে জানা গেছে রহনপুর ইউনিয়নের মিরাপুর তিন পুকুর গ্রামের সাদিকুল ইসলামের মেয়ে ও রহনপুর রাবেয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী সাম্মি খাতুন (১৪) এর সাথে প্রতিবেশী কেতবুলের ছেলে নয়ন(১৮) এর প্রায় এক বছর যাবত প্রেমের সর্ম্পক চলে আসছিল। বিষয়টি ছেলের পরিবার মেনে না নিয়ে প্রায় তিনমাস পূর্ব ছেলের অন্যত্র বিয়ে দেয়। বিয়ের পরও ওই ছেলে তার সাথে সর্ম্পক চালিয়ে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় গত ৭ আগস্ট তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় । পরে দিন গত ৮ আগস্ট সন্ধায় ছেলের পরিবারের লোকজন তাদের চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে উদ্ধার করে এলাকায় নিয়ে আসে। পরে ওই স্কুল ছাত্রী সাম্মিকে নয়নের পরিবারের লোকজন মারধর করে বাড়ি থাকে বের করে দেয়। মারধরে গুরুত্বর আহত ওই স্কুল ছাত্রীকে স্থানীয়দের সহয়তায় পরিবারের লোকজন রহনপুরস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরদিন এ ঘটনায় ওই স্কুল ছাত্রীর নানা তিনকড়ি গোমস্তাপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ ব্যাপারে পুলিশ কোন ভূমিকা না নেওয়ায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শফি আনসারীর নেতৃত্বে দুই ইউপি সদস্য বারর আলী ও মনিরুল ইসলাম মনির উপস্থিতিতে গত ৩০ আগষ্ট সন্ধ্যায় ওই এলাকায় একটি সালিশ অনুষ্ঠিত হয়। সালিশে বিষয়টি সামাজিকভাবে মিমাংসা করে দেয়া হয় বলে ইউপি চেয়ারম্যান জানান। কিন্তু ওই স্কুল ছাত্রীর নানা তিনকড়ি অভিযোগ করেন সালিশে তার পরিবারকে ৫৫ হাজার টাকা দেয়ার সিন্ধান্ত গৃহিত হলেও স্কুল ছাত্রী বিষয়টি মেনে না নিয়ে তাকে বিয়ের দাবি জানায়। সালিশে জরিমানার অর্থ তার পরিবার গ্রহন না করায় সেটি ওই ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে থেকে যায় তিনি জানান। তিনি আরো অভিযোগ করেন থানায় অভিযোগ দেয়ার পরও পুলিশ কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় এবং সালিশে সুবিচার না পাওয়ায় তার নাতনী আত্মহত্যা করে । এ দিকে ঘটনার পর থেকে নয়নের পরিবার এলাকা ছেড়ে আত্মগোপনে রয়েছে। ওই স্কুল ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ প্রসঙ্গে ইউডি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক মোতাহার আলী জানান, ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলেই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

মুঃ ইয়াহিয়া খান রুবেল/এবিএস

Comments are closed.