rockland bd

নড়িয়ায় ভাঙন, হাজারো মানুষের কান্না

0

ডয়েচে ভেলে,শরিয়তপুর:


নদীমাতৃক বাংলাদেশে নদীর পাড়ের বাসিন্দাদের কাছে এক আতঙ্কের নাম ভাঙন৷ অনেকের জীবন দুর্বিষহ হয়েছে এই ভাঙনে৷ কেউ হারিয়েছেন পরিবার, কেউ জীবিকা৷ প্রশ্ন হচ্ছে, নদী ভাঙন রোধের কি কোনো উপায় নেই?


শরিয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলায় পদ্মার ভাঙনে এরই মধ্যে পাঁচ হাজার মানুষ গৃহহীন হয়েছে৷ নদী গর্ভে চলে গেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ফসলি জমি৷বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্ষার পানি না কমা পর্যন্ত ভাঙন থামবে না৷
আলমগীর হোসেন৷ নড়িয়ার কেদারপুর ইউনিয়নের চর নড়িয়া গ্রামের একজন সম্পন্ন কৃষক৷ তিনি, তাঁর বাবা-মা, তাঁর তিন ভাই এবং তাঁদের স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে ভালোভাবেই জীবন কাটাচ্ছিলেন৷ কিন্তু পদ্মার ভাঙনে তাঁদের পুরো পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে৷ একই বাড়িতে চারটি পাকা ঘরে তাঁরা বসবাস করতেন৷ কিন্তু এখন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন৷ দুই ভাই স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ভাড়া বাসায় উঠেছেন৷ আর দুই ভাই স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে আশ্রয় পেয়েছেন দূর সম্পর্কের আত্মীয়ের বাড়িতে৷ বাবা-মা আশ্রয় নিয়েছেন আরেক বাড়িতে৷আলমগীর হোসেন ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে দুপুরের দিকে আমাদের পুরো বাড়ি চোখের সামনে পদ্মার গর্ভে চলে যায়৷ আমাদের কোনো সম্পদই আমরা সরাতে পারিনি৷ আমার মনে হচ্ছিল বাড়িটি দেবে যাচ্ছে৷ আমরা সবাই বাড়ির বাইরে দৌড়ে বের হই৷ বড় সড়কে চলে যাই৷ আর ততক্ষণে নদীর ভাঙনে আমাদের বাড়ি হারিয়ে

তিনি বলেন,‘‘আমাদের বাড়িতে মোট চারটি টিনশেড পাকা ঘর ছিল, যা নদীতে চলে গেছে৷ ঘরে যা ছিল তা-ও গেছে৷ বাড়ির কাছে ১৫ বিঘা ফসলি জমি ছিল, পুকুর ছিল৷ কিছুই এখন নেই৷ আমরা চার ভাই, আমাদের স্ত্রী-সন্তান, বাবা-মা সবাই এখন নিঃস্ব্, পথের ফকির হয়ে গেলাম৷’’
এই করুণ গল্প শুধু আলমগীর হোসেন ও তাঁর পরিবারের নয়৷ নড়িয়া পৌরসভা, বাঁশতলা , সাধুর বাজার, ওয়াপদা, মুলফতগঞ্জ, কেদারপুরসহ আরো অনেক এলাকার বহু মানুষের৷ পদ্মার ভাঙনে একের পর এক গ্রাম বিলীন হচ্ছে৷ বিলীন হচ্ছে বাজার, মন্দির, মসজিদ৷ আর বাড়ছে গৃহহীন, সব হারানো মানুষের সংখ্যা৷
আলমগীর হোসেন জানান,‘‘শুধু আমাদের বাড়ি নয়, পুরো চড় নড়িয়া গ্রামটিই বিলীন হয়ে গেছে৷ এই গ্রামে তিনশ’ পরিবার, এক হাজারের বেশি ঘর, তাঁদের ফসলি জমি, সব নদী কেড়ে নিয়েছে৷ সবাইকে নিঃস্ব করে দিয়েছে৷ কেউ অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন, কেউ ঢাকাসহ দেশের অন্য এলাকায় আত্মীয় স্বজনের কাছে চলে গেছেন৷’’
তিনি বলেন,‘‘নড়িয়ায় পদ্মার ভাঙনের নানা কারণ থাকতে পারে৷ কিন্তু আমাদের বিবেচনায় প্রধান কারণ হলো নদীর মাঝখানে একটি চর জেগেছে৷ ফলে নদীর মূল স্রোতে দক্ষিণ প্রান্ত থেকে উত্তর প্রান্তে, অর্থাৎ নড়িয়ার দিকে সরে এসেছে৷ ফলে নড়িয়া ভাঙছে তীব্রস্রোতে৷ এছাড়া আরো অনেক কারণ থাকতে পারে৷ নদী তার গতিপথ পরিবর্তন করতে পারে৷

এগুলো অ্যাসেস না করে বলা যায় না৷ এবার সর্বোচ্চ সাড়ে চারশ’ মিটার থেকে সর্বনিম্ন ৭০ মিটার পর্যন্ত ভেঙেছে৷ এর ব্যাপ্তি আড়াই বর্গ কি. মি.৷’’
পানি উন্নয়ন বোর্ডের হিসাব অনুযায়ী, নড়িয়ায় সাত বছরে ভেঙেছে ১৩ দশমিক ২৬ বর্গ কি.মি এলাকা৷ ২০১৭ সাল থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ভেঙেছে ৪ বর্গ কি.মি. এলাকা৷ আর জুলাই থেকে যে তীব্র ভাঙন শুরু হয়েছে, তাতে নদীগর্ভে গেছে প্রায় ৩ বর্গ কি. মি. এলাকা৷ শফিকুল ইসলাম জানান,‘‘এই ভাঙন সেপ্টেম্বর মাস জুড়েই চলতে থাকবে৷ এরপর বর্ষার পানি যখন কমতে থাকবে, তখন ভাঙনের তীব্রতা কমবে বলে আশা করি৷’’
নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা ইয়াসমিন ডয়চে ভেলেকে জানান,‘‘আমরা ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে তিন হাজার পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছি৷ সাড়ে তিনশ’ পরিবারকে দুই বান্ডিল করে ঢেউটিন দেয়া হয়েছে৷ ক্ষতিগ্রস্তদের সরকারি খাস জমিতে পুনর্বাসন করা হবে৷ গুচ্ছ গ্রাম এবং আশ্রয়ণ প্রকল্পেও তাঁরা ঘর-বাড়ি পাবেন৷ আর ব্যাংকগুলোকে আগামী পাঁচ মাস ঋণের কিস্তি আদায় না করতে বলা হয়েছে৷ যাঁরা নতুন করে ঋণ নেবেন, তাঁদের আমরা সহায়তা করব৷’’
পদ্মা তীরবর্তী নড়িয়ায় অতীতে নদী ভাঙন হয়েছে৷ তবে অন্য এলাকায়৷ নড়িয়ার সুরেশ্বর দরবার শরিফ রক্ষার জন্য ২০১০ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯০০ মিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয় বলে জানায় পানি উন্নয়ন বোর্ড৷
নদী ভাঙন রোধে ২০১২-১৩ অর্থবছরে জলবাযু ট্রাস্ট তহবিলের অর্থে নড়িয়ার চন্ডপুর, সাধুর বাজার ও পাঁচগাও এলকায় ১২ কোটি বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হয়৷
নির্বাহী প্রকৌশলী জানান,‘‘পুরো নড়িয়া এলাকায় নদী ভাঙন রোধে এক হাজার ৯৭ কোটি টাকার একটি প্রকল্প পাস হয়েছে৷ শুষ্ক মৌসুমে এর কাজ শুরু হবে৷’’

বাংলাটুডে২৪/এবিএস

Comments are closed.