rockland bd

রায় ঘোষণার তারিখ হতে দুই মন্ত্রী পদচ্যুত: বিএনপি

0

সুপ্রিম কোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের দুই মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে বিএনপি বলেছে, রায় ঘোষণার তারিখ (২৭ মার্চ) হতে দুই মন্ত্রী ‘পদচ্যুত’।

সোমবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ এ দাবি করেন।

তিনি বলেন, ‘দি পাবলিক সার্ভেন্টস (ডিসমিসাল অন কনভিকশন অডিরেন্স, ১৯৮৫ এর ধারা- ৩ (১) অনুযায়ী রায় ঘোষণার তারিখ হতে তারা (মন্ত্রীদ্বয়) পদচ্যুত হবেন।’

‘কারণ কোনো পাবলিক সার্ভেন্ট আদালত কর্তৃক ফৌজদারি মামলায় ১০ হাজার টাকার অধিক অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হলে তিনি তার স্বপদে বহাল থাকতে পারেন না’ যোগ করেন সাবেক এই আইনমন্ত্রী।

এক্ষেত্রে ২০১২ সালে আদালত অবমাননার দায়ে অভিযুক্ত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানি এবং ২০০৬ সালে ভারতের মহারাষ্ট্রের পরিবহন মন্ত্রী স্বরুপ সিং নায়েক ও ১৯৮২ সালে কেরালার মন্ত্রী আর বালা কৃষ্ণ পিল্লাইয়ের পদত্যাগের নজির তুলে ধরেন তিনি।

পদত্যাগের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘একদিকে ভোটারবিহীন অবৈধ সরকারের ফ্যাসিবাদী আচরণ, সেই সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত মন্ত্রী দিয়ে মন্ত্রিসভা পরিচালনা করা হলে আইনের শাসন বাধাগ্রস্ত হবে এবং বিচার বিভাগের মান ক্ষুন্ন হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আশা করি- এই দুই মন্ত্রী স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করবেন। আদালতের আদেশের কারণে যদি তাদের পদত্যাগ করতে হয়, তাতে তাদের মর্যাদা ক্ষুন্ন হবে না।’

মন্ত্রীরা পাবলিক সার্ভেন্ট কি না- এমন প্রশ্নে সাবেক এই আইনমন্ত্রী বলেন, ‘তারা (মন্ত্রী) পাবলিক সার্ভেন্টের মধ্যে পড়ে। মন্ত্রীরাও সংসদ সদস্য, তারাও পাবলিক সার্ভেন্ট।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা তো সুপ্রিম কোর্টের রায়। আমরা অপেক্ষা করবো- সুপ্রিম কোর্ট কী করে।’

এ সময় সুপ্রিম কোর্টের রায়ের তারিখ ২৭ মার্চ থেকে দুই মন্ত্রী কর্তৃক স্বাক্ষরিত সব আদেশ বাতিল ঘোষণা করার আহবান জানিয়ে মওদুদ আহমদ বলেন, তা না হলে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে সুদুরপ্রসারী নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।

আদালত নিয়ে মন্তব্য করে অবমননার দায়ে দণ্ডিত খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের শপথ ভঙ্গের বিষয়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের দেয়া পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের চার দিন পর বিএনপির পক্ষ থেকে এসব দাবি তোলা হলো।

এর আগে ২৭ মার্চ আপিল বিভাগ মীর কাসেমের রায় ঘোষণার আগে দুই মন্ত্রীর বক্তব্যকে আদালত অবমাননাকর উল্লেখ করে ৫০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেন। এরপর থেকে তাদের পদে থাকা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন, খায়রুল কবীর খোকন, আইন বিষয়ক সম্পাদক কায়সার কামাল, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, সহ দফতর মুনীর হোসেন, তাইফুল ইসলাম টিপু, কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Comments are closed.