rockland bd

লন্ডনে চিকিৎসা নিতে জামিন চাইলেন খালেদা জিয়া, তারেকের বিরুদ্ধে নয়া মামলা

0


ঢাকা, বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর: জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ফের জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন।
অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে খালেদার জামিন আবেদনে বলা হয়েছে, ‘তিনি গুরুতর অসুস্থ। তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে তার উন্নত চিকিৎসা হচ্ছে না। তাই জামিন পেলে তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যাবেন ‘
মঙ্গলবার বিকালে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুলের হকের হাইকোর্ট বেঞ্চে জামিন আবেদন দাখিল করা হয়।
খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য অ্যাডভোকেট সগীর হোসেন লিওন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
গত বছরের ১২ ডিসেম্বরে এ মামলায় আপিল বিভাগ খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছিলেন। একই বছরের ৩০ এপ্রিল জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাত বছরের দণ্ডের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে অর্থদণ্ড স্থগিত এবং সম্পত্তি জব্দের ওপর স্থিতাবস্থা দিয়ে দুই মাসের মধ্যে ওই মামলার নথি তলব করেছিলেন।
এরপর ২০ জুন বিচারিক আদালত থেকে মামলার নথি হাইকোর্টে পাঠানো হয়। গত বছরের ১৮ নভেম্বর হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল করা হয়।
২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রশাসনিক ভবনের সাত নম্বর কক্ষে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক মো. আখতারুজ্জামান জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেন।

অপরদিকে
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।
মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র মন্ডলের আদালতে মামলাটি করেন বাংলাদেশ জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এবি সিদ্দিকী।
বিচারক এ বিষয়ে বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি আদেশ দেবেন বলে জানিয়েছেন।
তারেক ছাড়া মামলার অপর আসামিরা হলেন- জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও লন্ডনের আইন ছাত্র পরিষদের সভাপতি শাহিদুর রহমান, জামায়াত নেতা মো. আফজাল হোসেন, মো. মুজিবুর রহমান, মো. আবদুল করিম, হাফেজ মো. দিদারুল ইসলাম, মো. জাকির হোসেন, মো. আব্দুল হালীম ও রফিকুল ইসলাম।
মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও তিনজনকে আসামি করা হয়েছে।
মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ৬ ডিসেম্বর মিরপুরে বাদীকে আসামিরা আটক করেন। এরপর তাকে বলেন, ‘আমাদের মা বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ নেতা-কর্মীদের নামে যত মামলা করেছিস তা আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রত্যাহার করে নিবি। তা না হলে আবার তোকে ও তোর প্রধানমন্ত্রীকে ২১ আগস্টের মতো গ্রেনেড মেরে খুন করব।’
এরপর বাদীকে জামায়াত-শিবির ও বিএনপির গুন্ডাবাহিনী খুন করার জন্য খুঁজতে থাকেন বলে মামলায় বলা হয়।
আরও অভিযোগ করা হয় যে লন্ডন থেকে তারেক রহমানের নির্দেশে শাহিদুর রহমান অশ্লীল ভাষায় ফেসবুক ও মেসেঞ্জারে বাদীকে হুমকিসহ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করেন, যার ফলে প্রধানমন্ত্রীর এক হাজার কোটি টাকার মানহানি হয়েছে।খবর ইউএনবির।

আস / বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর

Comments are closed.