rockland bd

দেশে দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জিত লক্ষ কোটি টাকা যায় কোথায় ?

0

ঢাকা, বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর: বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুর্নীতির মাধ্যমে ব্যক্তি লাভবান হলেও সেসব অর্থ দেশ বা সমাজের কোন কাজে লাগছে না। বাংলাদেশে প্রতিবছর দুর্নীতির মাধ্যমে কি পরিমাণ অর্থ আয়-রোজগার করা হয়, সেটার আসলে সঠিক কোন তথ্য-উপাত্ত কারো কাছে নেই। তবে দুর্নীতি নিয়ে যেসব সরকারি-বেসরকারি সংস্থা কাজ করে, তাদের ধারণা এই সংখ্যা লক্ষ কোটি টাকার কম নয়।
দুর্নীতিবিরোধী বেসরকারি সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলছেন, বাংলাদেশে দুর্নীতিকে দুইটি ভাগে ভাগ করা যায়। একটি হচ্ছে সেবা খাতের দুর্নীতি, ঘুষ হিসাবে যেটি বর্ণনা করা যায়। এর ফলে যারা সেবা নিচ্ছেন, তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন আর কর্মকর্তারা ঘুষ নিয়ে অর্থ সম্পত্তির মালিক হচ্ছেন। এরকম দুর্নীতির তথ্য বিশ্বের কোন দেশেই থাকে না।
আরেকটি দুর্নীতি হলো রুই-কাতলা দুর্নীতি বা বড় ধরণের দুর্নীতি, যার মধ্যে রয়েছে রাষ্ট্রীয় কেনাকাটা থেকে শুরু করে সরকারি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন, বাজেট বাস্তবায়ন ইত্যাদির মাধ্যমে যে দুর্নীতি হয়। সেখানে অনেকগুলো পক্ষ থাকে, যার মধ্যে রাজনৈতিক নেতারা, সরকারি আমলা, ব্যবসায়ী এরা জড়িত থাকে।
সর্বশেষ ২০১৮ সালের সূচকে দুর্নীতির দিক থেকে শীর্ষ ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৩তম।
২০০১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত শীর্ষ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় এক নম্বরে ছিল বাংলাদেশ। ২০১২ সাল থেকে চালু হওয়া নতুন দুর্নীতির ধারণা সূচকের তালিকায় শীর্ষ না হলেও প্রথম বিশটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের নাম থাকছে।
কিন্তু দুর্নীতির মাধ্যমে আয় করা এসব অর্থের কী হয়? তার কতটা বাংলাদেশে ব্যবহৃত হয় আর কতটা দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে? এসব অর্থ কী দেশের অর্থনীতিতে কোনরকম অবদান রাখে?
বাংলাদেশে দুর্নীতির বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন পদক্ষেপ নিলেও তা দুর্নীতি দমাতে পারছে না। প্রশ্ন হচ্ছে, কোথায় যায় এসব অর্থ?
বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের গবেষক নাজনীন আহমেদ বলছেন, অবৈধভাবে উপার্জিত অবৈধ আয়ের একটি অংশ দেশের ভেতরেই থাকে, আরেকটি অংশ নানাভাবে দেশের বাইরে পাচার হয়ে যায়।
তিনি বলছেন, দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জিত যে টাকা-পয়সা দেশের ভেতরে থেকে যায়, তার একটি বড় অংশ খরচ হয় ফ্ল্যাট বা জমি কেনার পেছনে।
”অনেক সময় এসব সম্পত্তি কেনা হয় স্ত্রী, সন্তান বা স্বজনদের নামে। দেখা যায়, তাদের নামে হয়তো কোন ট্যাক্স রিটার্ন দেয়া হয় না, ফলে এসব সম্পত্তির হিসাব সরকারের কাছেও আসে না। আবার অনেক সময় এগুলো পারিবারিক উপহার হিসাবেও দাবি করা হয়।”
সরকারিভাবেও বাজেট ঘোষণার সময় ‘কালো টাকা’ বলে পরিচিত এসব অবৈধ অর্থ আবাসন খাত বা শেয়ার বাজারের বিনিয়োগ করার সুবিধা দেয়া হয়েছে, যেখানে সরকারিভাবেই নিশ্চয়তা দেয়া হয় যে, অর্থের উৎস জানতে চাওয়া হবে না।
ফলে দেশের ভেতরে থাকা দুর্নীতির বেশিরভাগ অর্থ জমি এবং ফ্ল্যাট ক্রয়ে ব্যয় হয়ে বলে মনে করে বিশ্লেষকরা।
বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, আগে একসময় ‘কালো টাকা’ দিয়ে সঞ্চয়পত্র বা ব্যাংকে এফডিআর করে রাখা হতো। তবে এখন সঞ্চয়পত্রে টিআইএন বাধ্যতামূলক করা আর ব্যাংকে নজরদারি বেড়ে যাওয়ায় এসব খাতে ‘কালো টাকার’ বিনিয়োগ প্রবণতা কিছুটা কমেছে।
দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জিত অর্থে অনেকে স্বর্ণালঙ্কার, মূল্যবান সামগ্রী ক্রয়, ব্যবসায় বিনিয়োগ ইত্যাদি খাতেও খরচ হয়েছে।
আর দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জিত বড় অংকের অর্থ দেশের বাইরে পাচার হয়ে যায় বলে বলছেন অর্থনীতিবিদ নাজনীন আহমেদ। খবর বিবিসির।

আস / বাংলাটুডে টুয়ন্টিফোর

Comments are closed.