rockland bd

বিজ্ঞাপনে ধর্মের ব্যবহার নিয়ে কি ভাবছেন আলেমরা?

0

ডেস্ক প্রতিবেদন, ঢাকা


ইসলামিক ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক কবি মুহিব খান ও জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি মাহফুজুল হক।


পণ্য প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপন। ব্যবসায়িক স্বার্থে রয়েছে তার প্রয়োজন। কিন্তু ধর্মের ব্যবহার সেখানে কতোটা প্রাসঙ্গিক? সম্প্রতি বাংলাদেশের বেশকিছু প্রতিষ্ঠান ক্রেতা সাধারণের মনযোগ আকর্ষণ করার জন্য তাদের বিজ্ঞাপনে ধর্মের বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করছেন।
ব্যাপারটি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছে সচেতন মহলে। কেউ বলছেন, মুনাফা লাভের জন্য এভাবে ধর্মীয় অনুভূতিকে পুঁজি করে বিজ্ঞাপন নির্মাণ করা উচিত নয়। এতে ধর্মের প্রতি মানুষের যে শ্রদ্ধাবোধ বা আবেগ কাজ করে সেটা হালকা হয়ে যায়। পক্ষান্তরে কারো কারো মত হচ্ছে, বিজ্ঞাপনে ধর্মের ব্যবহার বাড়ার ফলে ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে অশ্লীলতার সয়লাব।
এ ব্যাপারে কয়েকজন ধর্মীয় বিশেষজ্ঞের মতামত জানার চেষ্টা করেছি আমরা। রাজধানীর মালিবাগ মাদরাসার প্রিন্সিপাল (শাইখুল হাদিস) আল্লামা আশরাফ আলী বলেন, ‘ব্যবসায়িক পণ্যের বিজ্ঞাপন দেয়ার অধিকার সবার আছে। তবে সেখানে ধর্মীয় কোন বিষয়কে উপস্থাপনের ক্ষেত্রে অবশ্যই যত্মশীল থাকতে হবে।’
এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি আরো বলেন, নিজের খেয়ালখুশি মত ইসলামকে ব্যবহার করে মুনাফা অর্জন অবশ্যই নিন্দনীয়। এবং এটি অত্যন্ত গর্হিত কাজ। ধর্মের ভুলব্যাখ্যা দিয়ে অবাস্তব কিছু তুলে ধরে যারা বিজ্ঞাপন বানায় তাদের সম্পর্কে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। ইসলামের অবমাননা করা হলে উলামায়ে কেরাম ঘরে বসে থাকবেনা।’
ঢাকার মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি মাহফুজুল হক বলেন, ‘ব্যবসা-বাণিজ্যের বিজ্ঞাপন দুনিয়াবি সিস্টেমেই চালানো উচিত। সেখানে ধর্মকে বিশেষ করে ইসলামকে টেনে আনার কোন মানে হয়না। ক্রেতাদের প্রভাবিত করার জন্য যারা ধর্মকে ব্যবহার করার পথে হাঁটছে তারা অবশ্যই অন্যায় করছে।’
এ প্রতিবেদককে তিনি আরো জানান, বিষয়টি নিয়ে উচ্চ পর্যায়ে আলাপ-আলোচনা চলছে। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকদের প্রতি আমাদের আহবান, আপনারা সঠিক পদ্ধতিতে ব্যবসার প্রচারণা চালান। কিন্তু এর মাধ্যমে ধর্মীয় রীতিনীতিকে ভুলভাবে উপস্থাপন করলে পরিণাম শুভ হবেনা।”
ইসলামিক ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক কবি মুহিব খান বলেন, ‘সাহিত্য-সংস্কৃতি, নাটক-সিনেমা এবং বিজ্ঞাপনে এমন কিছুর উপস্থাপন করা উচিত নয় যা আমাদের সামাজিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধের সাথে সাংঘর্ষিক। এসব ক্ষেত্রে ধর্মের নামে যারা অধর্মের চর্চা করছে তাদেরকে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা দরকার।’ তিনি আরো বলেন, বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে সেন্সরবোর্ড কড়াকড়ি হলে এসব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। তবে ইতিবাচক কিছুর উপস্থাপনকে অবশ্যই সাধুবাদ জানাই।”
উল্লেখ্য, গত কিছুদিন যাবৎ মোবাইল অপারেটর রবির একটি বিজ্ঞাপন নিয়ে তুমুল বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। সমালোচকরা বলছেন, রবির সেই বিজ্ঞাপনে ইসলাম ধর্মের শিক্ষার ভুল উপস্থাপন করে দেখানো হয়েছে। বিজ্ঞাপনটির চিত্রায়ন ও বক্তব্যের ভাষা ছিল অবাস্তব। সবচেয়ে বেশি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে তাদের কলরেটের সাথে ইবাদতের তুলনার বিষয়টি।
এ ছাড়াও রুহ আফজা, লাইফবয় হ্যান্ডওয়াশ, সানসিল্ক শ্যাম্পুসহ বেশ কিছু বহুজাতিক কোম্পানি তাদের পণ্যের বিজ্ঞাপনে ধর্মের বিভিন্ন বিষয় ব্যবহার করায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন আলেমসমাজের নেতৃবৃন্দ।

বাংলাটুডে২৪/আর এইচ

Comments are closed.