rockland bd

তারাগঞ্জে মাদ্রাসা শিক্ষিকাকে ধর্ষনের অভিযোগে মামলা

0

তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি


তারাগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র মেকানিকের বিরুদ্ধে এক মাদ্রাসা শিক্ষিকাকে প্রেম ও বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষনের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষনের স্বীকার শিক্ষিকা গত বুধবার (২৯ আগষ্ট) রাতে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে শিক্ষিকাকে রংপুর মেডিকেল কলেজে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ঘনিরামপুর এলাকার হাড়িয়ারকুঠি দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষিকা বিপালী বেগম (৩৪) এর সাথে প্রায় দেড় বছর পূর্বে হাড়িয়ারকুঠি ইউনিয়নের কিসামত মেনানগর বড়বাড়ি গ্রামের ইদ্রিস হোসেনের পুত্র ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র মেকানিক আনোয়ার হোসেন (৩৮) এর সাথে পরিচয় হয়।
এ সময় ওই শিক্ষিকাকে প্রথমে প্রেম ও পরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিক বার ধর্ষন করেন আনোয়ার হোসেন। গত ২৫ শে আগষ্ট সন্ধ্যায় আনোয়ার হোসেন শিক্ষিকার বাড়িতে আসেন। এসময় শিক্ষিকা আনোয়ার হোসেনকে বিয়ের চাপ দিলে বিয়ে করবে এমন কথা বলে সে চলে যায়।
এ ঘটনায় গত ২৯ শে আগষ্ট বিপালী বেগম থানায় আনোয়ারকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা দায়ের করেন। এদিকে শিক্ষিকা বিপালী বেগম একই গ্রামের সাইদুল ইসলামকে বিয়ে করেন এবং তাদের ৬ বছরের এক পুত্র সন্তান রয়েছে। ২০১৪ সালে মাদ্রাসার সুপার আতাউর রহমানের সাথে প্রেমের সম্পর্ক করে পালিয়ে যায় বলে বিপালীর বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েচে। ঐ ঘটনায় বিপালীর স্বামী সাইদুল ইসলাম তার মাদ্রাসার সুপার আতাউর রহমান সহ ৫ জনের বিরুদ্ধে তারাগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।
পরে মাদ্রাসার সুপার আতাউর রহমানকে বিয়ে করেন বিপালী। এসব ঘটনার মধ্যেই ওই শিক্ষিকা আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে আবারো ধর্ষনের অভিযোগ করেন থানায় মামলা করেছেন।
ওই শিক্ষিকার সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, মাদ্রাসা সুপার স্বামীর সাথে দীর্ঘদিন থেকে সম্পর্ক নেই। আনোয়ার আমাকে বিয়ে করবে বলে একাধিকবার ধর্ষন করেছেন। তার কথাতেই স্বামী সুপারের সাথে দীর্ঘদিন থেকে আমার কোন প্রকার সম্পর্ক নেই। সুপারকে ডির্ভোস দিব দিব বলে দেয়া হচ্ছে না।
আনোয়ার হোসেনের মুঠোফোনে যোগযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।
তারাগঞ্জ থানার ওসি জিন্নাত আলী বলেন, ধর্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বাংলাটুডে২৪/প্রবীর কুমার/আর এইচ

Comments are closed.