rockland bd

কলকাতার পুজামন্ডপে আজান প্রচার, বিতর্ক তুঙ্গে

0

বিদেশ ডেস্ক. বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর: উত্তর কলকাতার  একটি বড় দূর্গা পুজা মন্ডপে মাইকে সংস্কৃত মন্ত্রের পাশাপাশি মাঝে মাঝে আজান প্রচার করায় বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। তবে পুজার আয়োজকরা জানিয়েছেন, তাদের এবারের দূর্গা পুজার ‘থিম’ বা প্রতিপাদ্য হচ্ছে ধর্মীয় সম্প্রীতির। ‍‍খবর দি ডিক্কান ক্রণিকলের। খবরে বরা হয়, এই দূর্গা মন্ডপ দেখতে আসা কেউ কেউ বিষ্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, হিন্দুদের মনে আঘাত দিয়ে মন্ত্রের পাশাপাশি ১০ – ১৫ মিনিট অন্তর অন্তর আজান প্রচার করা কেমন ধর্মীয় সম্প্রীতি! তারা বলেন, আজান প্রচার করা হয় মসজিদ থেকে মুসলমানদের মসজিদে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে। কিন্তু পুজা মন্ডপের ভিতর থেকে আজান প্রচার – সেটা কেমন কথা!

এদিকে শান্তনু সিংহ নামে কলকাতা হাই কোর্টের একজন আইনজীবী এর প্রতিবাদে শুক্রবারই বেলেঘাটা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে বলেছেন এই পুজা কমিটির আয়োজকরা আসলে পশ্চিম বঙ্গে সম্প্রীতি নষ্ট করতে চাইছেন।

আয়োজকরা অবশ্য এই অভিযোগে কর্ণপাত করছেন না। তারা বলছেন পুজা কমিটি আলোচনা করে এবারের পুজার এই থিম নির্ধারণ করেছে। কে কোথায় মামলা করে করুক। এই পুজা কমিটর প্রধান পৃষ্ঠপোষক পরেশ পাল ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের একজন বিধায়ক। তিনি বলেন, আমাদের এবারের পুজার প্রতিপাদ্য হলো‍, “আমরা এক, একা নই।”

তিনি আরো বলেন, আমরা ‘ওম শান্তি মন্ত্রের পাশাপাশি আজানও’ প্রচার করছি। সকল ধর্মেই তো স্রষ্টার নৈকট্যই কামনা করা হয়। তিনি আরো বলেন, এই পুজা প্যান্ডেলের সাজ সজ্জায় মন্দির, গীর্জা ও মসজিদের মটিফ রয়েছে। সব ধর্মের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থেকে আমরা এটা করেছি। আমরা মানবতাকে প্রাধান্য দিয়েছি। কেউ মামলা করলে করুক, আমরা লড়ব।

তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করে বলেন, হিন্দুরা কি ইফতার পার্টিতে যান না? মুসলমানেরা কি বিজয়া দশমীর উৎসব থেকে দূরে থাকেন? বাংলা চিরকালই ধর্মীয় সম্প্রীতিকে প্রাধান্য দিয়েছে।

আস / বাংলাটুডে টুয়েন্টিফোর

 

Comments are closed.