rockland bd

সম্পর্ক নষ্ট করতে পারে যে চারটি কারণ!

0

একটি সম্পর্ক তৈরি করতে লাগে অনেক দিন। উভয় পক্ষের অনেক সুন্দর মুহূর্তের সমন্বয়ে তৈরি হয় সম্পর্ক। অথচ সেই সম্পর্ক নষ্ট হতে পারে অতি সাধারণ চারটি কারণে।

সম্প্রতি মনোবিজ্ঞানীরা এমনটাই জানিয়েছেন। তাদের ভাষ্যমতে, সমালোচনা-অপমান-আত্মরক্ষামূলক আচরণও অতি সতর্কতার কারণে ভেঙ্গে যেতে পারে একটি ভাল সম্পর্ক।

সমালোচনা- এবং একে অপরকে দোষারোপ
মনোবিজ্ঞানীরা গবেষণা করে দেখেছেন, একে অপরকে দোষারোপ করা আসলে ব্যক্তিত্বের সমালোচনা করা। এই দোষারোপের পালা বেশিদিন চলতে থাকলে সম্পর্কও আর বেশিদিন স্থায়ী হয় না। তাই পরস্পরকে দোষারোপ না করে পরস্পর যদি নিজের দোষ খুঁজে বের করি এবং তা সংশোধনের চেষ্টা করিম তাহলে সম্পর্ক আরো দৃঢ় হবে।

অপমান করা
গবেষণা থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী গবেষকরা মনে করছেন বৈবাহিক সম্পর্কের বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে সবথেকে বেশি প্রভাব ফেলে অবমাননা, তাচ্ছিল্য, অবজ্ঞা কিংবা অপমান। আপনার সঙ্গীকে সর্বদা গুরুত্ব দিন। তাকে অবহেলা করবেন না। আর অন্যের সামনে অবশ্যই অপমান করবেন না। এতে সম্পর্ক খারাপ হয় অত্যন্ত দ্রুততার সাথে। আপনার সঙ্গীকে যথাযোগ্য সম্মান করুন।

আত্মরক্ষামূলক আচরণ
নিজের দোষ কিংবা ভুলকে কিছুতেই স্বীকার না করার অভ্যাস এবং ত্রুটি লুকিয়ে রাখতে অজুহাতের পর অজুহাত দেয়া সম্পর্ক নষ্টের জন্য যথেষ্ট। এই ধরণের আচরণ আপনার হীনমন্যতাকে আরো বাড়িয়ে দেয়।

ফলে আপনার দিক থেকে সম্পর্কের প্রতি যেমন ভালবাসা কমে যায়, অপর দিক থেকেও কমে যায়। তাই স্বচ্ছ থাকুন আপনার সঙ্গীর সঙ্গে। নিজের দোষ লুকানোর চেষ্টা না করে তার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সংশোধনের চেষ্টা করুন। এতে পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস বাড়বে।

অতি সতর্কতা
আত্মরক্ষায় অজুহাত যেমন সু-সম্পর্কের ক্ষেত্রে কাম্য নয় তেমনি অতি সতর্কতাও সম্পর্কের ক্ষেত্রে হানিকর। সব রকম যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে কোনো রকম সমস্যার সমাধান না করাও সম্পর্কের জন্য ভালো নয়। ভাল বা খারাপ যে বিষয়ই হোক, আপনার সঙ্গীর সঙ্গে যোগাযোগ করে জানান। আপনার সঙ্গীর সঙ্গে একটি স্বচ্ছ সম্পর্ক বজায় রাখুন।

Comments are closed.