rockland bd

সরকারী ভাতার টাকা চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যের পকেটে

0

ওবায়দুল ইসলাম রবি, রাজশাহী প্রতিনিধি (বাংলাটুডে) : রাজশাহীর পবা উপজেলার দর্শণপাড়া ইউনিয়নের বিধবা, প্রতিবন্ধি ও বয়স্কভাতার অনিয়ম টাকা নিয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। ভাতাসুবিধাভোগী মানুষের মাঝে টাকা বিতরণ করা হলেও চেয়ারম্যানের নির্দেশে ৯টি ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যরা ব্যাংকের পাশে একটি আম বাগানে ভাতাপ্রপ্তদেও কাছ থেকে দুই-তিন হাজার টাকা করে আদায় করা হয়। এ নিয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ভাতাসুবিধাভোগীরা।
গতকাল বুধবার ভূক্তভোগীদের সাথে আলাপকালে জানাযায়, দর্শণপাড়া ইউনিয়নের ১০৮ জন সুবিধাভোগীর মাঝে বয়স্কভাতা, প্রতিবন্ধিভাতা ও বিধবাভাতা দেওয়া হয়। রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক দর্শণপাড়া শাখার মাধ্যমে ওই টাকা বিতরণ করা হয়েছে। কিন্তু চেয়ারম্যানের নির্দেশে ইউপি সদস্যরা সুবিধাভোগীদের নিকট থেকে দুই-তিন হাজার টাকা করে আদায় করে। শর্ত সাপেক্ষে কার্ড দেয়ার ব্যবস্থা করে দেয়ার কারনে ২-৩ হাজার টাকা করে চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের দিতে হবে বলে জানায় ভুক্তভোগীরা।
দর্শণপাড়া গ্রামের প্রতিবন্ধি টুটুল অভিযোগ করে জানায়, তার নিকট থেকে ০৩ হাজার টাকা নিয়েছেন ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। তবে টুটুল টাকা দিতে অস্বীকার করলে কার্ড বাতিলের হুমকি দেয়া হয়। ফলে তিনি ৮ হাজার ৭০০ টাকা পেলেও তাঁর নিকট থেকে আদায় করা হয়েছে তিন হাজার টাকা। এবিষয়ে ফজলু নামের বলেন, ব্যাংক তাকে ৬ হাজার টাকা দিয়েছে। কিন্ত চেয়ারম্যান আর মেম্বারদের জন্য তিন হাজার টাকা দিতে হলো। কিন্ত বর্তমান সরকার তাদেরকে ভাতা দিচ্ছে কিন্ত তার ভাগ সবায় নিচ্ছে।
প্রসঙ্গত, রুবিনা ও লাইলি বেগম অভিযোগ বলেন তাদের বিধবাভাতা থেকে দুই হাজার টাকা করে কেটে নেওয়া হয়েছে। এভাবে প্রত্যেকের নিকট থেকেই টাকা নিয়েছেন চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা। একইভাবে বিধবা, প্রতিবন্ধি ও বয়স্কভাতা সুবিধাভোগীদের নিকট থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা নেওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয়দের পক্ষ থেকে দুর্নীতি দমন কমিশনের হট নম্বরে (১০৬) অভিযোগ করা হয় বলে জানান এক ব্যক্তি। কিন্তু বিষয়টি দেখছি বলে দুদকের হট নম্বর থেকে ওই ব্যক্তিকে জানানো হলেও পরবর্তিতে আর সেটি নিয়ে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।
তবে টাকা কেটে নেওয়ার বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করা হলে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান রাজ বলেন, ‘এই ধরনের অভিযোগ সঠিক নয়। কেউ টাকা নিয়েছে বলে আমার কাছে খবর নাই। আমার নাম করে টাকা নেওয়ারও প্রশ্নই আসে না।

আমিন/০২আগস্ট/২০১৯

Comments are closed.