rockland bd

৮০ লাখ টাকাসহ গ্রেফতার ডিআইজি প্রিজন কারাগারে

0

পার্থ গোপাল বণিক


ডেস্ক রিপোর্ট, ঢাকা, ২৯ জুলাই (বাংলাটুডে) : সিলেটের কারা উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি প্রিজনস) পার্থ গোপাল বণিকের বাসা থেকে ৮০ লাখ টাকা জব্দ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। একইসঙ্গে তাকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।
আজ (রোববার) বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডির ভুতের গলিতে তার বাসায় অভিযান চালিয়ে এই টাকা জব্দ করা হয়। তারও আগে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত দুদকের সেগুনবাগিচার প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের পরিচালক মুহাম্মদ ইউছুফের নেতৃত্বে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় পার্থ গোপাল বণিককে।
দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানান, ঘুষ ও দুর্নীতির কয়েক লাখ নগদ টাকা তার বাসায় রয়েছে- এমন তথ্যের ভিত্তিতে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে পার্থ গোপাল বণিকের বাসায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ৮০ লাখ টাকা জব্দ করা হয়।
সিলেটে দায়িত্ব পালনের আগে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে দায়িত্ব পালন করেন পার্থ গোপাল বণিক। চট্টগ্রাম কারাগারের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তাকে এবং চট্টগ্রামের সাবেক সিনিয়র জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিককে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। তারপরই অভিযানে যায় কমিশন।
তবে পার্থ দাবি করেন, ৮০ লাখ টাকা তার বৈধ আয় থেকে অর্জিত। এর মধ্যে ৩০ লাখ টাকা শাশুড়ি দিয়েছেন। বাকি ৫০ লাখ টাকা সারাজীবনের জমানো টাকা।
দিনাজপুরে ঘুষ নেয়ার সময় হাতেনাতে নির্বাহী প্রকৌশলী আটক

এদিকে, দিনাজপুরে বাড়ি বরাদ্দের জন্য ঘুষ গ্রহণকালে ৬০ হাজার টাকাসহ জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ দিনাজপুর ডিভিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসাইনকে আটক করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
রোববার রাত সাড়ে ৮টায় গোপনে অভিযান চালিয়ে বাড়ি বরাদ্দের জন্য আবেদনকারীর কাছ থেকে নগদ ঘুষ গ্রহণকালে নিজ কার্যালয় থেকে তাকে আটক করা হয়েছে। দুদক দিনাজপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান বলেন, জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভায় দিনাজপুর হাউজিং এস্টেটের একটি বাড়ি নাজমুন্নাহার নামের এক নারীকে বরাদ্দ দিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। কিন্তু দুদক এনফোর্সমেন্ট ইউনিটে অভিযোগ আসে যে অনুমোদনের দেড় বছর অতিক্রান্ত হলেও বাড়িটি বরাদ্দ না দিয়ে তাকে হয়রানি করছিলেন জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ।
আবু হেনা জানান, ভুক্তভোগী তাদেরকে বারবার অনুরোধ করলেও নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসাইন ও উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল ওয়াদুদ বরাদ্দ প্রদানের জন্য দেড় লাখ টাকা দাবি করেন।
তিনি বলেন, ‘অভিযোগকারী দুদকের শরণাপন্ন হলে দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সদস্যরা একটি এনফোর্সমেন্ট টিম গঠন করেন। ওই টিম রোববার সন্ধ্যা থেকেই গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ দিনাজপুর ডিভিশনে গোপনে অভিযান চালায়। দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পর এক সময় আবেদনকারীর কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা নগদ ঘুষ গ্রহণ করছিলেন নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসাইন। এ সময় দুদকের সদস্যরা গিয়ে নিজ কার্যালয়ে হাতেনাতে তাকে আটক করেন। এ ব্যাপারে একটি এজাহার দায়ের করা হয়েছে। আটককৃতকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হবে।’

এবিএস

Comments are closed.