rockland bd

নেমে যাচ্ছে বন্যার পানি জেগে উঠছে লন্ডভন্ড রাস্তাঘাট ও বাড়িঘর

0

মিঠু আহমেদ, জামালপুর জেলা প্রতিনিধি
বন্যার পানি নামতে শুরু করায় জেগে উঠছে রাস্তাঘাট। পানির প্রচণ্ড তোড়ে লন্ডভন্ড হয়ে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে জেলার বেশিরভাগ রাস্তাঘাট। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে দুর্গত এলাকার মানুষ। কোন কোন এলাকায় ভাঙ্গা রাস্তার উপর স্থানীয়ভাবে তৈরি বাঁশের নড়বড়ে সাঁকোর উপর দিয়ে চলছে যাতায়াত।
সরেজমিনে আজ বুধবার সকালে গিয়ে দেখা যায়, জামালপুরে বন্যার পানি কমার সাথে বেশে উঠছে বিধ্বস্ত বাড়ি-ঘর ও রাস্তাঘাটের ধ্বংসস্তুপ। জামালপুর –সরিষাবাড়ী, মেলান্দহ-মাহমুদপুর, ইসলামপুর-গুঠাইল, দেওয়াগঞ্জ-সানন্দবাড়ী, সরিষাবাড়ী-তারাকান্দিসহ অনেক রাস্তা ভেঙ্গে বন্ধ রয়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। টানা ৭ দিনের বন্যায় পানির তোড়ে রাস্তা লন্ডভন্ড হওয়ায় ইসলামপুর, মেলান্দহ, সরিষাবাড়ী ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার সদরের সঙ্গে বেশিরভাগ ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ রয়েছে। ওইসব ইউনিয়নে পৌঁছানো যাচ্ছেনা বন্যার্তদের ত্রাণ সামগ্রী। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছে বানভাসি মানুষ। সাধারণ মানুষের দাবী রাস্তাঘাটগুলো দ্রæত সময়ের মধ্যেই মেরামত করে তাদের দূর্ভোগ কমিয়ে আনবে বলে তাদের প্রত্যাশা।
স্থানীয় বানভাসী মনিরুল ইসলাম, গেদা মিয়া, মনোহর আলী বলেন, সাধারণ মানুষের দাবী রাস্তাটি দ্রæত সময়ের মধ্যেই মেরামত করে তাদের চলাচলের উপযোগী করে দূর্ভোগ কমিয়ে আনার। শুধু রাস্তাঘাট নয় তাদেও বাড়ি-ঘরের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানান। তারা এখন কোন প্রকার ত্রাণও পাননি।
পরিবহন চালক সোহেল বলেন, পানির প্রচণ্ড তোড়ে লন্ডভন্ড হয়ে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে জেলার বেশিরভাগ রাস্তাঘাট। ফলে আমরা গাড়ি চালাতে পারছি না। প্রায় বেকারই বলা চলে। রাস্তা-ঘাটগুলি যদি দ্রুত মেরামত করে দেয়া হয় তাহলে অনেকটা ভাল হতো আমাদেও জন্য।
কলেজ পড়–য়া সাধারণ যাত্রী মনিজা ইয়াসমিন বলেন, জামালপুর কেন্দুয়া থেকে সরিষাবাড়ি যাওয়ার রাস্তাটি পানির তোড়ে ভেঙে যাওয়ায় আমাদেও কলেজে যাতায়াত করা খুবই কষ্ট হচ্ছে। এছাড়াও দশ টাকার ভাড়া পঞ্চাশ টাকা দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। যদি কেউ অসুস্থ্য হয়ে পড়ে তাকে ডাক্তারের কাছেও নেয়া যাচ্ছে না।
নির্বাহী প্রকৌশলী সড়ক ও জনপথ,জামালপুর মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এবারের বন্যায় জামালপুর সড়ক বিভাগের প্রায় ৪০ কিলোমিটার রাস্তার ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে জামালপুর-সরিষাবাড়ী সড়কের ২০ মিটার সড়ক ধ্বসে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এ রাস্তার ৫ কিলোমিটার এলাকা। বন্যার পানি নামা মাত্রই ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাগুলো মেরামতের ব্যবস্থা করা হবে।
রাতুল/বাংলাটুডে

Comments are closed.