rockland bd

পদ্মা নদীতে ২৭ সে.মি. পানি বৃদ্ধি, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ঘাট তলিয়ে গেছে

0

অস্বাভাবিক হারে পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে ফেরিতে উঠছে যানবাহন।


মোঃ ইব্রাহীম, রাজৈর প্রতিনিধি (বাংলাটুডে) : অস্বাভাবিক হারে পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটে তীব্র ঘূর্নি¯্রােতে অব্যাহত থাকায় গত ২৪ ঘন্টায় এ রুটে পানি বেড়েছে ২৭ সে.মি। অস্বাভাবিক হারে পানি বেড়ে শুক্রবার পানিতে তলিয়ে যায় কাঠালবাড়ির ৪টি ঘাট। মাত্র ৪/৫টি ফেরি কোনমতে চলছে।
পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌছেছে যে ফেরি কখন আসবে কেউ বলতে পারছে না। ফেরির অচলাবস্থার কারনে দক্ষিণাঞ্চলের বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এ রুট হয়ে। চলছে শুধু কাটা সার্ভিস। উভয় ঘাটে যানবাহনের সাড়ি আরো দীর্ঘ হয়ে টার্মিনাল, ঘাটের সড়কের পর পদ্মা সেতুর এপ্রোচ সড়কের দেড় কিলোমিটার জুড়ে ট্রাকের সাড়ি দেখা গেছে । দীর্ঘদিন ঘাটে আটকে থাকায় পেয়াজসহ কাচামালে পচন ধরেছে ।
বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ি ঘাট সূত্রে জানা যায়, পদ্মা নদী অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি পেয়ে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটের শুক্রবার তীব্র ¯্রােতের গতিবেগ আরো বেড়েছে। ২৪ ঘন্টায় পানি বেড়েছে ২৭ সে.মি। অস্বাভাবিক হারে পানি বেড়ে শুক্রবার পানিতে তলিয়ে যায় কাঠালবাড়ির ৪টি ঘাট। মূল নদী থেকে লৌহজং টার্নিং এর প্রবেশ মুখে সৃষ্টি হয়েছে ভয়াবহ ঘূর্নিবর্ত। ৪-৫ টি ফেরি দিয়ে কোনমতে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। চলমান ফেরিগুলোও ঝূকি নিয়ে দীর্ঘসময় ব্যায় করে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। এতে উভয় পাড়ে ১২শ যানবাহন আটকে পড়ে আছে। যানবাহনের লাইন পদ্মা সেতুর এপ্রোচ সড়ক পর্যন্ত পৌছেছে। এপ্রোচ সড়কের দেড় কিলোমিটার জুড়ে ট্রাকের সাড়ি দেখা গেছে। এতে যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকরা চরম দূর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।
শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা সকল ফেরি,লঞ্চ,স্পীডবোটগুলো উজান বেয়ে অতিরিক্ত সময় নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। এতে সময় বেশি ব্যয়ের সাথে সাথে বাড়তি জ¦ালানীও খরচ হচ্ছে। ¯্রােতের গতিবেগ বৃদ্ধি পেলে ¯্রােতের সাথে চলতে না পারায় মঙ্গলবার থেকে ফেরি পারাপারে অচলাবস্থা চলছে।
পেয়াজবাহী ট্রাক চালক আবুল হাশেম বলেন, ভারতের পেয়াজ নিয়ে ৫দিন আগে ভোমরা বন্দর থেকে কাঠালবাড়ি এসেছি। এপ্রোচেই পড়ে আছি। ঘাটেও পৌছাতে পারিনি। পেয়াজসহ ঘাটে অনেক কাচামাল আটকে পড়েছে।
ফেরি কাকলীর মাস্টার নুরুল আমিন বলেন, পদ্মায় ¯্রােত দিন দিন বাড়ছে। ফেরি ছাড়ার পর কখন আসবো বলা যায় না। ঘূর্নিবর্তের কারনে লৌহজং টার্নিং খুবই ঝুঁকিপূর্ন হয়ে পড়েছে।
বিআইডব্লিউটিসি কাঠালবাড়ি ঘাট ম্যানেজার আঃ সালাম বলেন, পানি বাড়ার গতি খুবই অস্বাভাবিক। আমাদের ঘাটের ৪টি ঘাটই তলিয়ে গেছে পানিতে। আমরা যানবাহনগুলোকে বিকল্প রুট ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছি।

আমিন/১৯জুলাই/২০১৯

Comments are closed.