rockland bd

ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়নের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

0

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন করে অপরাধীদের কঠোর শাস্তি প্রদানের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।


সংসদ ভবন, ১১ জুলাই, ২০১৯ (বাংলাটুডে) : প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ নেতা শেখ হাসিনা ধর্ষণের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন করে অপরাধীদের কঠোর শাস্তি প্রদানের ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেছেন, এ ধরনের জঘন্য কার্যকলাপ কখনও মেনে নেয়া যায় না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের আইন আরো কঠোর করা দরকার, আরো কঠোরভাবে তাদের (এসব অপরাধীদের) শাস্তি দেয়া দরকার। কারণ এই ধরনের জঘন্য কার্যকলাপ কখনও মেনে নেয়া যায় না।’
এ ব্যাপারে তাঁর সরকার যথাযথ পদক্ষেপ প্রহণ করবে বলেও প্রথানমন্ত্রী কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেন।
প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ নেতা শেখ হাসিনা আজ সন্ধ্যায় একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় (বাজেট) অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে একথা বলেন। ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এ সময় স্পিকারের দায়িত্ব পালন করছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের কিছু সামাজিক অপরাধ প্রবণতা বেড়ে গেছে। শিশুদের ওপর পাশবিক অত্যাচার অথবা মানুষ খুন করা, ছোট শিশুদের খুন করা- যখন ঘটনা ঘটে এবং এরপর পত্রিকায় সংবাদ হয় (অবাধ তথ্য প্রবাহের এই যুগে) তারপরে যেন এর হারটা বেড়ে যায়।
তিনি ইলেকট্রনিক মিডিয়া বা চ্যানেলগুলোর উদ্দেশে ধর্ষকদের চেহারাটা বার বার তুলে ধরার আহবান জানান। যাতে তাদের যেন লজ্জা হয়।
এসব সামাজিক অপরাধের বিরুদ্ধে পুরুষদেরকেও নারীদের পাশাপাশি প্রতিবাদ-প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, ‘আমরা শুধু মেয়েরাই এর প্রতিবাদ করবো কেন? এখানে পুরুষ সম্প্রদায়ের জন্য লজ্জার বিষয় যে তারা এই অপরাধটা করে যাচ্ছে। সেজন্য আমাদের পুরুষ সম্প্রদায়কেও আরো সোচ্চার হতে হবে বলে আমি মনে করি।’
প্রধানমন্ত্রী দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় এ বিষয়ে সকলকে সচেতন থাকার পাশাপাশি বাসগৃহের চারপাশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার আহ্বান জানান।
প্রধানমন্ত্রী ডেঙ্গুর জন্য দায়ী এডিস মশাকে ‘অ্যারিস্টোক্রাট’ মশা আখ্যায়িত করে কৌতুক ছলে বলেন, এরা বস্তিতে থাকে না, ময়লা জায়গায় থাকে না, তারা ভদ্র জায়গা খোঁজে এখানেই সমস্যা, ওষুধ দিলেও যায় না।
তিনি বলেন, মশারি টানিয়ে থাকার সঙ্গে সঙ্গে সকলকে বাড়ি-ঘর এবং এর আশপাশ পরিষ্কার রাখতে হবে। পাশাপাশি যেসব জায়গায় পানি জমে থাকে, ফুলের টব, এয়ার কন্ডিশনের পানি যেন জমতে না পারে সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ এই মশা পরিষ্কার জায়গায় ডিম দেয় ও বংশবৃদ্ধি করে।
দেশে ডেঙ্গুর চিকিৎসা ব্যবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ধরা পড়ছে এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি।’

আমিন/১১জুলাই/২০১৯

Comments are closed.