rockland bd

বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নিল বাংলাদেশ

0

খেলা, ক্রিক ইনফো


লিটন দাস


ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে ১৯ রানে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতে নিয়েছে বাংলাদেশ।
মোস্তাফিজুর রহমানের ফুলটস উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অফে একেবারে সীমানার কাছে যখন আরিফুল হকের তালুবন্দি হলেন ক্যারিবীয় ফাস্ট বোলিং অলরাউন্ডার, বাংলাদেশ দলের উচ্ছ্বাস তখনই মাঠে ছড়িয়ে পড়ে।
ম্যাচের ফল যেন নির্ধারণ হয়ে গেছে ওই আউটেই। ২১ বলে ৪৭ রান করা রাসেল ফিরতেই নামল বৃষ্টি! বৃষ্টির পর আর খেলা হয়নি। ১৭.১ ওভারে ৭ উইকেটে ১৩৫ করা ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেমে গেল ওখানেই। ডি-এল পদ্ধতিতে জিতে গেল বাংলাদেশ।
এর আগে লিটন-তামিমের উদ্বোধনী জুটি যে অসাধারণ শুরু এনে দিয়েছে, সেটি কাজে লাগিয়ে উইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ পেয়েছে ৫ উইকেটে ১৮৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর।
প্রথম ১০ ওভারে ৩ উইকেটে ৯৭ করা বাংলাদেশ পরের ১০ ওভারে করেছে ২ উইকেটে ৮৭। ১৬.৩ ওভারে ১৫ মিনিটের বৃষ্টি-বিরতির পর রানের গতি কিছুটা শ্লথ হলেও শেষ দিকে মাহমুদউল্লাহর ২০ বলে ৩২ রানের ছোট্ট ঝড়টা ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর গড়তে সহায়তা করেছে।
লিটন দাস ৩২ বলে ৬১ রানের দারুণ এক ইনিংস উপহার দেন। তার ইনিংসে ছিল ৬টি চার আর ৩টি ছক্কায় সাজানো। শেষ দিকে মাহমদুল্লাহ রিয়াদ আর আরিফুল হক রানের গতি আরো বাড়িয়ে দেন। মাহমুদুল্লাহ ২০ বলে করেন ৩২ রান।

আউট হয়ে ফিরে যাচ্ছেন আন্দ্রে রাসেল


বৃষ্টির কারণে অবশ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের ইনিংস শেষ করতে পারেনি। ১৭.১ ওভারে তাদের স্কোর যখন ৭ উইকেটে ১৩৫, তখনই খেলা বন্ধ হয়ে যায় বৃষ্টির কারণে। তখন বাকি ১৭ বলে তাদের করার দরকার ছিল ৫০ রান কিছু সময় অপেক্ষার পর বাংলাদেশকে ডি/এল পদ্ধতিতে জয়ী ঘোষণা করা হয়।
বড় রান তাড়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ পায়নি প্রত্যাশিত ঝড়ো শুরু। ছন্দে না থাকা এভিন লুইসকে সরিয়ে ওপেনিংয়ে ফেরানো হয় চাডউইক ওয়ালটনকে। মেলেনি সমাধান।
আন্দ্রে ফ্লেচারকে তার প্রিয় শটে ফাঁদে ফেলে আউট করেন মুস্তাফিজুর রহমান। পঞ্চম ওভারে তিন বল করে চোট নিয়ে মাঠ ছাড়েন নাজমুল অপু। আর আর ফিরতেই পারেনি মাঠে। বদলি কাজ চালাতে আসা সৌম্য ফিরিয়ে দেন ওয়ালটনকে।
পরের ওভারে সাকিবের নিচু হয়ে যাওয়া স্কিড করা বলে বোল্ড মারলন স্যামুয়েলস। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে রান ছিল ৩ উইকেটে ৩২।
দিনেশ রামদিন ও রভম্যান পাওয়েল চেষ্টা করেছেন দলকে টেনে নিতে। কিন্তু গতি পায়নি ইনিংস।
প্রায় মরা ম্যাচ জীবন্ত হয় আন্দ্রে রাসেলের খুনে ব্যাটিংয়ে। গিয়েই শুরু করেন ছক্কার ঝড়। প্রথম ২৪ রান করেন ৪ ছক্কায়!
রাসেলের ব্যাটেই অভাবনীয় কিছুর আশায় ছিল ক্যারিবিয়ানরা। সেই আশার কফিনে পেরেক ঠুকে দেন মুস্তাফিজ। ৬ ছক্কায় ২১ বলে ৪৭ রান করা রাসেলকে ফিরিয়ে সরিয়ে দেন শেষ বাধা।
ফ্লোরিডার আকাশের কান্না শুরু এরপরই। বাংলাদেশের জন্য যা আনন্দ বৃষ্টি। সিরিজের প্রথম সকালে ৪৩ রানে গুটিয়ে শুরু হয়েছিল যে সফর, সেটির সমাপ্তি হাসি, নাচ আর জয়ের উচ্ছ্বাসে মাঠ প্রদক্ষিণে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১৮৪/৫ (লিটন ৬১, তামিম ২১, সৌম্য ৫, মুশফিক ১২, সাকিব ২৪, মাহমুদউল্লাহ ৩২*, আরিফুল ১৮*; বদ্রি ০/২৩, নার্স ০/৩১, রাসেল ০/৩৬, ব্র্যাথওয়েট ২/৩২, পল ২/২৬, উইলিয়ামস ১/৩২)।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ১৭.১ ওভারে ১৩৫/৭ (ওয়ালটন ১৯, ফ্লেচার ৬, স্যামুয়েলস ২, পাওয়েল ২৩, রামদিন ২১, রাসেল ৪৭, ব্র্যাথওয়েট ৫, নার্স ০*; আবু হায়দার ১/২৭, রুবেল ১/২৮, মুস্তাফিজ ৩/৩১, নাজমুল ০/২, সৌম্য ১/১৮, সাকিব ১/২২)

ফল: ডাকওয়ার্থ-লুইসে বাংলাদেশ ১৯ রানে জয়ী

সিরিজ: ৩ ম্যাচ সিরিজে বাংলাদেশ ২-১ ব্যবধানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: লিটন দাস

ম্যান অব দা সিরিজ: সাকিব আল হাসান

বাংলাটুডে২৪/আর এইচ

Comments are closed.