rockland bd

ঈদ এলেই লক্কড়-ঝক্কড় গাড়ি মেরামতের হিড়িক পড়ে

0


সোহেল রানা, যশোর প্রতিনিধি, ৪ জুন (বাংলাটুডে) :
যশোরে ঈদকে সামনে রেখে ওয়ার্কশপগুলোতে চলছে পুরাতন ও লক্কড়-ঝক্কড় গাড়ি মেরামত। রঙচটা গাড়িতে দেয়া হচ্ছে রঙের প্রলেপ। এতে গাড়িগুলোকে দেখায় নতুনের মতো। উদ্দেশ্য ঈদে ঘরমূখী মানুষের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়।
বিআরটিএ’র তথ্যমতে, যশোর অঞ্চলে ৭৯ হাজার ৭৮৪টি গাড়ি রয়েছে। যার মধ্যে শুধু মোটরসাইকেল রয়েছে ৬৫ হাজার ৭৪৪টি। অন্যান্য যানবাহন রয়েছে ১৪ হাজার ৪০টি। তার মধ্যে সাড়ে ৪ হাজার গাড়ির ফিটনেস নেই। যশোরে প্রায় ৬শ’ ওয়ার্কশপ রয়েছে। সেখানে ফিটনেসবিহীন ভাঙা গাড়িগুলোতে জোড়াতালি ও রঙ দেয়া হচ্ছে। আবার কোনও গাড়ির ইঞ্জিন, ব্রেকে সমস্যা। কোনোটির সিট ছেঁড়া, আবার কোনোটির বডিতে রঙ নেই।
ঈদের সময় পরিবহনগুলোর ওপর স্বাভাবিকভাবেই বাড়তি চাপ থাকে। আর সে সুযোগ কাজে লাগাতে ফিটনেসবিহীন, লক্কড়-ঝক্কড় মার্কা বাসগুলো ফিট দেখাতে কাজ হচ্ছে যশোরের ওয়ার্কশপ গুলোতে। রোজা শুরু হওয়া এ কর্মযজ্ঞ চলবে ২৭ রোজা পর্যন্ত। ঈদের সময় বহু পুরনো এসব গাড়ি মেরামত করে নতুন সাজে সড়কে নামানো হবে। তাই ব্যস্ত সময় পার করছেন ওয়ার্কশপের কর্মচারীরা।
শহরের বকচর এলাকার একটি গ্যারেজের রঙমিস্ত্রি আরিফুল ইসলাম বলেন, ঈদ সামনে রেখে পুরনো গাড়ি রঙ করে নতুনরূপে সাজানো হচ্ছে, যাতে যাত্রীরা আকৃষ্ট হয়। সময় মতো ডেলিভারি দিতে দিন-রাত গাড়িতে রঙের কাজে ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে।
স্থানীয়রা জানান, পুরনো গাড়ি যতই ঠিক করা হোক, রাস্তায় নামানোর পর থেকে দুর্ঘটনার আশঙ্কা থেকেই যায়। ঈদে ত্রুটিমুক্ত যাত্রীবাহী গাড়ির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সড়ক ও মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন শত শত যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়। ফলে ঈদে ঘরমুখো মানুষের রাস্তায় ভোগান্তি বেড়েই যায়।

আমিন/০৪জুন/২০১৯

Comments are closed.