rockland bd

কাউনিয়ায় সহস্রাধিক শিক্ষক কর্মচারী বৈশাখী আনন্দ থেকে বঞ্চিত

0

সারওয়ার আলম মুকুল কাউনিয়া, রংপুর প্রতিনিধি
বে-সরকারী মাধ্যমিক স্কুল,কলেজ ও মাদ্রাসার দীর্ঘ প্রতিক্ষিত বৈশাখী ভাতার চেক মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক ব্যাংকে চেক হস্তান্তর করা হলেও তা কাউনিয়া ব্যাংকে না আসায় কাউনিয়া উপজেলার সহস্রাধিক শিক্ষক কর্মচারী বৈশাখী উৎসব থেকে বঞ্চিত হয়।
একটি সূত্রে জানাগেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর বে-সকারী শিক্ষক কর্মচারিদের বৈশাখী উৎসব ভাতার চেক গত ৮ এপ্রিল ব্যাংকে হস্তান্তর করে এবং তা তোলার শেষ ১১ তারিখ বেধে দেয়।
কিন্তু পহেলা বৈশাখ (১৪ এপিল) তারিখ পেরিয়ে গেলেও সোনালী ব্যাংক কাউনিয়া, মীরবাগ ও হারাগাছ শাখায় বৈশাখী ভাতা প্রদানের স্বারক/কাগজ না আসায় শিক্ষক কর্মচারীরা ব্যাংকে এসে ফেরত গেছে। নানা জল্পনা কল্পনার পর বর্তমান সরকার বে-সরকারী শিক্ষক কর্মচারীদের জন্য ২০% বৈশাখী ভাতা প্রদানের ঘোষণা দেয়। যা চলতি মাসের ১১ তারিখের মধ্যে তোলার শেষ তারিখ ছিল। কিন্তু বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখের আগে ব্যাংকে স্বারক পত্র না পৌছায় ব্যাংক থেকে শিক্ষক কর্মচারীরা টাকা তুলতে নাপারায় বৈশাখী আনন্দ থেকে বি ত হয়। উপজেলার ৩২টি মাদ্যমিক বিদ্যালয়, ৭টি দাখিল মাদ্রাসা,৪টি সিনিয়র মাদ্রাসা,৪টি আলিম মাদ্রাসা ৪টি ফাজিল মাদ্রাসা ও ৪টি কলেজ এর সহস্রাধিক শিক্ষক কর্মচারী বৈশাখী ভাতা তুলতে না পেরে আনন্দ থেকে বি তহয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন জানান শিক্ষক কর্মচারীদের কথা বিবেচনা করে সরকার সরকারী কর্মচারীদের ন্যায় বৈশাখী ভাতা প্রদান করে। কিন্তু সময় মতো ব্যাংকে কে ভাতার স্বারক আসল না তা আমার বোধগম্য নয়।
সোনালী ব্যাংক ম্যানেজার জানান ভাতা প্রদানের কাগজ নাপেলে আমরা কিভাবে টাকা দিব। সরকারের ভাল একটি উদ্যোগ থেকে কেন কাউনিয়ার বে- সরকারী মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষক কর্মচারী বৈশাখী উৎসব থেকে বি ত হল তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে বিজ্ঞ মহল মনে করছেন।
লিখন/বাংলা টুডে

Comments are closed.