rockland bd

গুরুদাসপুরে পুকুর খনন বন্ধ করলেন এমপি কুদ্দুস

0


গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি (বাংলাটুডে) :
নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার সড়ক মহাসড়ক দাপিয়ে বেড়ানো মাটিবহনকারী ট্রাক-ট্রাক্টর এবং কৃষিজমিতে অবৈধভাবে পুকুর খননের মহোৎসবকে কোনোভাবেই থামানো যাচ্ছেনা। স্থানীয় সংসদ সদস্য মাইকে প্রচার করেও বন্ধ করতে পারেননি। অবশেষে ১৮ মার্চ সংসদ সদস্য আবদুল কুদ্দুস ঝটিকা অভিযান চালিয়ে বন্ধ করে দিয়েছেন এসব অবৈধ কর্মকান্ড। ফলে ইটভাটাগুলো বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় দুশ্চিন্তায় অনেকটা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন ইটভাটার মালিকরা। কখন বুঝি আবারো পুকুর খনন শুরু হয় আশঙ্কায় রয়েছেন এলাকাবাসী।
একই সাথে গুরুদাসপুর ইউএনও অফিসের পিয়ন ‘পুকুর খেকো’ আমজাদ হোসেনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে এমপি কুদ্দুস সাংবাদিকদের বলেন, নাটোর জেলা প্রশাসককে ওই ‘পুকুর খেকো’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। সেই সাথে পুকুর খনন কার্যক্রমের মূল হোতা পিয়ন আমজাদকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।
এর আগে পুকুর খননের বিরুদ্ধে দৈনিক আমাদের সময় সহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ও দৈনিকে ফলাওভাবে সংবাদ ছাপা হয়। তবুও টনক নড়েনি প্রশাসনের। মাঝে মধ্যে অভিযান চালিয়ে এসবের জরিমানা আদায় ‘আইওয়াশ’ ছিল কিনা তাও জনমনে প্রশ্ন রয়েছে। সম্প্রতি গুরুদাসপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দু’দিন আগে ৮ মার্চ প্রত্যাহার হওয়া ইউএনও মনির হোসেন এবং ওসি সেলিম রেজার বিরুদ্ধে পুকুর খনন বাণিজ্যের অভিযোগ ছিল।
এতকিছুর পরেও পুকুর খননযজ্ঞ বন্ধ হচ্ছিলোনা। ঠিক সেই মুহুর্তে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক মো. আবদুল কুদ্দুসের হস্তক্ষেপে ১৮ মার্চ উপজেলার বেশ কয়েকটি পয়েন্টে পুকুর খনন ও মাটিবহনের ট্রাক্টর বন্ধ করে দেওয়া হয়। মাটি বোঝাই চারটি ট্রাক্টর এখনও থানায় আটক রয়েছে। কিন্তু এলাকাবাসীর মন থেকে রহস্যের ধোঁয়শা যেন কাটছে না। শব্দ দূষণ আর ধুলা উড়িয়ে দুর্দান্ত প্রতাপে সড়কগুলো ক্ষতবিক্ষত করে দেবে ট্রাক্টরগুলো। কারণ স্থানীয় এমপির হস্তক্ষেপে বন্ধ হয়ে যাওয়া ট্রাক্টরগুলোর কারণে ভাটা বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় দুশ্চিন্তায় অনেকটা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন ইটভাটার মালিকরা। এমপি আবদুল কুদ্দুসকে ম্যানেজ করার জন্য তারা বিভিন্নভাবে তৎপরতা চালাচ্ছেন।
চাঁচকৈড় বাজারপাড়া মহল্লার আব্দুস সামাদ ফকির বলেন, পুকুর খনন আর সড়কে মাটিবহনকারী গাড়ী চলাচলের কারণে এলাকার শত শত বিঘা আবাদি জমিতে হয়েছে স্থায়ী জলাবদ্ধতা আর ক্ষতবিক্ষত হয়েছে পাকা সড়কগুলো। সেই সাথে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটলেও তা বন্ধ হচ্ছেনা। মশিন্দা চরপাড়া গ্রামের নাজমুল হক, ইকবাল হোসেনসহ অনেকের ধারণা, এলাকার জনস্বার্থে এমপি আবদুল কুদ্দুস এ ব্যাপারে জিরো টলারেন্স দেখাবেন এবং কোনো অবস্থাতেই তিনি অবৈধ পুকুর খননের বিভৎস্য অনুশীলনের পুনরাবৃত্তি হতে দেবেন না।
এ ব্যাপারে আবদুল কুদ্দুস এমপি বলেন, কেউ পুকুর খনন বন্ধ করতে পারেনি। আমি করেছি। এই ভাল কাজগুলো সাংবাদিকদের চোখে পড়েনা। সাংবাদিকরা সতর্ক থাকলে আর কেউ পুকুর খনন করতে পারবে না এবং পাকা সড়কগুলোও নষ্ট হবে না।
এ ব্যাপারে নাটোরের জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজ বলেন, পিয়ন আমজাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মো. আখলাকুজ্জামান/এবিএস/২১/০৩/১৯

Comments are closed.