rockland bd

রাণীনগরে শেষ সময়ে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা

0

রহিদুল ইসলাম রাইপ, নওগাঁ প্রতিনিধি (বাংলাটুডে) :

সংসদ নির্বাচনের রেশ কাটতে না কাটতেই বেজে উঠেছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ডামাডোল।

আগামী ১৮ মার্চ দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার প্রতিটি জনপদ সরগরম হয়ে উঠেছে। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ভোটের আমেজ ততই বাড়ছে।
পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে গেছে উপজেলার প্রতিটি এলাকা। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রচার মাইকে মুখরিত হয়ে থাকছে পুরো উপজেলা।
তবে কে কে হচ্ছেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তা দেখার অপেক্ষায় উপজেলাবাসী। সাধারন ভোটারদের মাঝে চলছে প্রার্থীদের নিয়ে চুল ছেড়া বিশ্লেষন।
প্রচার প্রচারণায় মুখোরিত হয়ে উঠেছে বিভিন্ন মোড়ের চায়ের ষ্টল, হোটেলসহ প্রতিটি দোকান। লিফলেট হাতে কাক ডাকা ভোর থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত চলছে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। নির্ঘুম রাত জেগে প্রার্থীদের প্রচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে প্রতিটি জনপদ।
চেয়ারম্যান, পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পদচারণায় এখন ঘুম ভাঙ্গছে ভোটারদের। ভোর হলেই কড়া নাড়ছেন প্রার্থীরা। মনে হয় ভোটার ও প্রার্থীর মধ্যে আছে আত্মীয়তার বন্ধন, যা অটুট রাখতে মরিয়া প্রার্থীরা। দিয়ে যাচ্ছেন নানা রকমের প্রতিশ্রুতি। এখন শুধু প্রশ্ন একটাই কে হচ্ছেন আগামীর ভাইস চেয়ারম্যান?
রাণীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে টিউবয়েল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন উপজেলা যুবলীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা মরহুম শহীদুল্লাহ মিঞার ছেলে জারজিস হাসান মিঠু, উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে উপজেলা শ্রমিকলীগের সাধারন সম্পাদক রুস্তম আলী, মাইক প্রতীক নিয়ে রাণীনগর প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক মাওলানা শহীদুল ইসলাম, তালা প্রতীক নিয়ে যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও সাবেক মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম ও বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীক নিয়ে আহসান হাবীব মিলন বর্তমানে ভোটযুদ্ধের মাঠে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে হাঁস প্রতীক নিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রান ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক এবং পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদা বেগম এবং উপজেলা যুব মহিলালীগের সভাপতি মমতাজ সাথী ফুটবল প্রতীক নিয়ে লড়ছেন ।
এই উপজেলায় তিন পদে মোট ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্রসহ ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন।
তবে সাধারন ভোটাররা বলছেন ক্লিন ইমেজের শিক্ষিত, যোগ্য ও যে মানুষটি বিপদে-আপদে সাধারণ মানুষের পাশে এসে দাঁড়াবেন তাকেই ভোট দিয়ে বিজয়ের মালা পড়িয়ে দিবেন।
বিশেষ করে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন ও বিশেষ করে উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে যে মানুষটি বেশি ভুমিকা রাখবেন এমন মানুষকেই আমরা ভোট দিয়ে জয়ী করবো।
তবে প্রার্থীরা বর্তমানে যে প্রতিশ্রুতিগুলো দিয়ে যাচ্ছেন ক্ষমতায় আসার পর সেগুলো বাস্তবায়ন করলেই আমরা সাধারন মানুষরা অনেক খুশি হবো।

হাসান/১৪মার্চ/২০১৯

Comments are closed.