ভারতের মাটিতে অসম্ভবকে সম্ভব করলো অস্ট্রেলিয়া

0

রাশেদুল হাসান, নিজস্ব প্রতিবেদক (বাংলাটুডে) :

ভারতের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার ৪ উইকেটের জয়ে পাঁচ ম্যাচ সিরিজ ২-২ এ সমতায় এলো।


৩৫০ বা ততোধিক রান করেও হারতে হবে এমনটি হয়তো কখনই ভাবেনি ভারত, তাও আবার নিজেদের মাটিতে।
প্রথম দুই ম্যাচ হেরে সিরিজ সহকেই হেরে যাওয়ার শঙ্কায় ছিলো অস্ট্রেলিায়। সেই অস্থা থেকে শেষ দুই ম্যাচ জিতে এখন ২-২ এ সিরিকে সমতা।
এর আগে ধাওয়ান ও রোহিতের ১৯৩ রানের ওপেনিং জুটিতে ভর করে ৩৫৮ রানের পাহাড়সম স্কোর দাঁড় করায় ভারত। আর সেটি ১৩ বল হাতে রেখে সহজেই যে অস্ট্রেলিয়া টপকে যাবে কেইবা জানতো।
মোহালিতে হ্যান্সসকম, ওসমান খাঁজা আর টার্নারের টর্নেডো গ্যালারিতে বসে নিশ্চুপভাবেই হজম করছিলো ভারতের দর্শকরা।
শেখর ধাওয়ানের ফর্মে ফারার ইঙ্গিতের পাশাপাশি ব্যাক্তিগত ১৪৩ রানের ইনিংসটি যেন ভাটা পড়ে গেল টার্নারের ম্যাচ জেতানো ঝড়ো ইনিংসে। বিশেষ করে মোহালির শিশিরসিক্ত মাঠে সব কিছুই যেন এলোমেলো যাচ্ছিলো কোহলিদের। বোলার ও ফিল্ডাররা খেলার নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে পারছিলেন না।
এ ম্যাচে পুরানদের পাশাপাশি নতুনের ঝলকানিতে ভর করে সামনের বিশ্বকাপে আশা আলো দেখতেই পারে অস্ট্রেলিয়া।
পেট কামিনসের শেষ দিকের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ভারতীয় স্কোর অন্তত ২০ থেকে ২৫ রান কম হয়েছে। ৭০ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট নেন প্যাট কামিন্স। ৩টি উইকেট নেন ঝাই রিচার্ডসন।
ব্যাটিংয়ে শুরুতে জোড়া উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পরা অসিদের উদ্ধারে এগিয়ে আসেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান উসমান খাজা। তিনি ৯১ রানে আউট হন। তাকে সঙ্গ দিয়ে অভিষেকেই সেঞ্চুরি হাকান পিটার হ্যান্ডসকম।
৩৫৯ রানের লক্ষ্যটা এক সময় অসম্ভব মনে হচ্ছিল। উসমান খাজা ও পিটার হ্যান্ডসকম্ব সেটাকে সম্ভব মনে করাচ্ছিলেন। কিন্তু প্রথমে খাজা ও পরে হ্যান্ডসকম্বের বিদায়ে ম্যাচের লাগাম ভারতের কাছে চলে আসে।
কিন্তু সেটি আর হতে দেননি ইনজুরিতে পরা মার্কাস স্টোইনিসের স্থলে দলে জায়গা পাওয়া এস্টন টার্নার। ৪৩ বলে ৮৪ রানের এক ঝলকানো ইনিংসেই ভারতীয়দের আশার গুড়ে বালি পড়ে।
তবে এ ম্যাচে বিরাট কোহলির বোলারদের ব্যবহারের কৌশল ঠিক তেমন কাজে আসেনি। শুরুতে দুই উইকেট হারানো অস্ট্রেলিয়াকে তিনি স্ট্রাইক বোলারদের দিয়ে আরো চেপে না ধরে বরং শেষের জন্য জমিয়ে রাখেন। আর এতেই ক্রিজে ধিতু হওয়ার সময় পায় অসি ব্যাটসম্যানরা। শেষে আর কাজে আসেনি বেসট বোলারদের প্রচেষ্টাও। সূত্র : ক্রিক ইনফো

রাশেদ/১০মার্চ/২০১৯

Comments are closed.