rockland bd

রাবিতে বাংলা ভাষার সংকট ও সম্ভাবনা বিষয়ক সেমিনার

0


রিজভী আহমেদ, রাবি প্রতিনিধি (বাংলাটুডে) :
শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ‘বাংলা ভাষা ও বাংলাভাষী: সংকট ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিজের (আইবিএস) আয়োজনে ভবনের কনফারেন্স কক্ষে এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
সেমিনারে উপস্থিত আলোচক ও অতিথিগণ বাংলা ভাষা ও বাংলাভাষীদের বিভিন্ন সংকট ও সংকট থেকে উত্তরণের সম্ভাবনা বিষয়ে আলোচনা করেন।
আইবিএস এর পরিচালক জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তপোধীর ভট্টাচার্য। এসময় আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ ও গবেষক ড. গোলাম মুরশিদ, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জোৎস্না চট্টোপধ্যায়।
তপোধীর ভট্টাচার্য বলেন, ‘১৯৪৭ সালে দেশভাগের মাধ্যমে বাঙালীদের দ্বিখণ্ডিত করা হয়েছে। শুধু এখানেই থেমে থাকে নি। শাসক গোষ্ঠীর দল এখনো বাংলা ভাষাকে নিয়ে চক্রান্ত করে চলেছে। বর্তমানে চরম সংকটাপূর্ণ অবস্থা অতিক্রম করছে আসাম, ত্রিপুরার বাঙালীরা। তারা বাংলা ভাষার ইতিহাস-ঐতিহ্যকে তারা ধরে রাখতে পারবে কিনা তা এখন প্রশ্নের সম্মুখীন।
পৃথিবীতে বাঙালীর সংখ্যাও নেহাত কম নয়। কিন্তু আমাদের এই ভাষা ও জাতিসত্ত্বাকে ঘিরে চতুরতা চলছে। শাসক শ্রেণির সুনজরে থাকার জন্য আমাদের নিজস্ব সত্ত্বাকে বিকিয়ে দিতে হচ্ছে। আমরা ইতিহাসের এক যুগসন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে। আমি অদম্য বাঙালী সন্তান হওয়ার যোগ্যতা রাখি কিনা সেটিই আমাদের ভাবিয়ে তুলছে। তবে আমরা অপেক্ষা করছি। এ সংকট থেকে একদিন আমরা পরিত্রাণ পাবোই।’
প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাবি উপাচার্য অধ্যাপক আবদুস সোবহান বলেন, এখন আসামে যা হচ্ছে তা শাসকরাই করছে। আমরা সবসময়ই দেখেছি তারা ধর্মের ও ভাষার নামে ক্ষমতার আসন পাকাপোক্ত করতে ও স্বার্থ হাসিলের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে এসব চাপিয়ে দেয়। শাসক যদি কল্যাণকর হয় তাহলে তারা মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখবে। এই সংকট তৈরির ফলে প্রতিদিনই ভাষা হারিয়ে যাচ্ছে। এই সংকট আমরাই তৈরি করেছি। কখনো সে¦চ্ছায় কখনও বা অন্য কারণে। এই ব্যপারে যদি সচেতন হওয়া যায় ও আমাদের মাঝে যদি দেশপ্রেম থাকে তবে এই সংকট থেকে আমরা মুক্তি পেতে পারি।
এসময় বিশেষ অতিথি উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মো. জাকারিয়া, উপমহাদেশের বিখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও আইবিএস এর ফেলোগণ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রাশেদ/২৭/২/১৯

Comments are closed.