rockland bd

দরিদ্র ভ্যানচালকের মহানুভবতা

0


রাজৈর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি (বাংলাটুডে) :

যে কাজ করা উচিত বড় মাপের মানুষের। সেই কাজটি করে দেখালেন দরিদ্র ভ্যানচালক সেলিম শরীফ। ভ্যানচালক সেলিম শরীফের বাড়ির সামনে গেলে চোখে পড়ে বিশাল একটি ব্যানারে লেখা “মানুষ মানুষের জন্য” । ব্যানারে লেখা কথাটি প্রমাণ করে দিলেন দরিদ্র ভ্যানচালক সেলিম।এক বছর আগে নিজ বাড়িতে টিনের ঘর তুলে নিস্ব ও প্রতিবন্ধি মানুষের সেবা দিয়ে আসছেন তিনি।
রাজৈর পৌর সভার মেয়রের সহধর্মিনী মুক্তা নেওয়াজ শারীরিক প্রতিবন্ধী ও অসহায় মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করে প্রধান অতিথির ব্যক্তবে বলেন মায়ের মত তাদের পাশে থাকতে চাই আমি। তিনি মাটিতে বসে প্রতিবন্ধী শিশুদের নিজ হাতে খাবার খাইয়ে দেন মুক্তা নেওয়াজ। প্রতিবন্ধীদের সাথে খাবার খাইলেন রাজৈরের ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শেখ ফজলুল হক বাবুল।
মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার শাখার পাড় গ্রামে দরিদ্র ভ্যানচালক সেলিম শরীফের উদ্যোগে শারীরিক প্রতিবন্ধী ও অসহায় মানুষের সেবাকেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়। এ সেবাকেন্দ্রে ৪৪ জন শারীরিক প্রতিবন্ধী ও ১৬ জন অসহায় মানুষ সেবা গ্রহন করে, আর এ সেবার কাজটি দরিদ্র ভ্যানচালক সেলিম শরীফের কষ্টার্জিত টাকায় হয়ে থাকে। তিনি এক বছর আগে নিজ বাড়ীতে টিনের ঘর তুলে এদের সেবা দিয়ে আসছেন। প্রতিদিন সকাল ৯ টায় এসব শারীরিক প্রতিবন্ধী ও অসহায় মানুষকে ডেকে তার নিজের তৈরী সেবাকেন্দ্রে নিয়ে আসেন এবং বেলা ১ টা পর্যন্ত সেবা প্রদানের সাথে সাথে বিভিন্ন ধরনের শিক্ষা দিয়ে থাকেন।
গতকাল শনিবার দুপুরে তাদের ভাল খাবারের আয়োজন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় । প্রতিবন্ধী ও অসহায় মানুষের সেবা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সেলিম শরীফের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রাজৈর পৌর সভার মেয়রপত্নি মুক্তা নেওয়াজ, বিশেষ অতিথি হিসাবে রাজৈর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শেখ ফজলুল হক বাবুল, শাখার পাড় ইউনিয়নের সভাপতি কাওছার মোল্লা, কবিরাজপুর ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক কাওছার আলম,লুন্দি শেখ রাসেল কলেজের প্রভাষক মঞ্জুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। পরে শারীরিক প্রতিবন্ধী ও অসহায় মানুষের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।
এ ব্যাপারে শাখারপাড় গ্রামের প্রতিবন্ধী মনির হোসেন বলেন, আমি প্রতিবন্ধী এবং আমার ১৮ বছরের একটি প্রতিবন্ধী ছেলে রয়েছে। প্রতিবন্ধীদের নিয়ে যে যন্ত্রনা ভুক্তভোগীর মা-বাবা ছাড়া কেউ বোঝেনা। সেলিম সেবাকেন্দ্র করায় আমাদের অনেক উপকার হয়েছে। এ সেবা চালিয়ে যেতে পারলে আমাদের শারীরিক প্রতিবন্ধীদের সমস্যা দূর হবে।
সেবা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সেলিম শরীফ জানায়, আমার নিজের একটা সন্তান আছে । আমার আয় করা টাকা দিয়ে এদের সেবা দিয়ে আসছি। এখানে শাখারপাড়, শ্রীনদী ও রাজৈরসহ বিভিন্ন এলাকার প্রতিবন্ধী রয়েছে। এদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সরকারী সহযোগিতা পেলে এই সেবাকেন্দ্রে আরও সুন্দরভাবে সেবা দেয়া সম্ভব হত।
রাজৈর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা এস এম ফজলুল হক জানান, এসব প্রতিবন্ধীকে জরিপের আওতায় এনে সহযোগিতার ব্যবস্থা করা হবে।
রাজৈর উপজেলা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রে ডাঃ মোঃ ইয়াসিন জানান, যেসব প্রতিবন্ধী চলাচল করতে পারে না তাদের আমারা হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা করব। এছাড়াও তাদের ফ্রি চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।

মোঃ ইব্রাহীম /এবিএস/২৪/২/১৯

Comments are closed.