‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’ তো শুনেছেন, ‘গ্যালেন্টাইনস ডে’ কি জানেন?

0


ফিচার ডেস্ক (বাংলাটুডে) :
আগামীকাল ১৪ ফেব্রুয়ারি—ভ্যালেন্টাইনস ডে। বাংলা মুলুকে ভালোবাসা দিবস নামেই খ্যাতি। ইতিহাস যা-ই বলুক, দিনটিকে প্রেমময় করে তুলতে বিশ্ব প্রস্তুত। ভালোবাসার মানুষটির সঙ্গে কাল উষ্ণতা উদযাপন করবেন অগণিত মানুষ। প্রিয় মানুষটির হাতে উঠবে লাল গোলাপ, কেউ খোঁপায় গুঁজে দেবেন ফুল।
ভালোবাসা দিবসের ওই উষ্ণতার গল্প সবারই জানা। কিন্তু জানেন কি, আজ (১৩ ফেব্রুয়ারি) অর্থাৎ ভালোবাসা দিবসের একদিন আগে কেন মেয়েরা ‘গ্যালেন্টাইনস ডে’ পালন করছে? ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইনডিপেনডেন্ট এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।
এ অঞ্চলে খুব একটা পরিচিতি না পেলেও প্রতিবছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্বের অনেক দেশে উদযাপিত হচ্ছে গ্যালেন্টাইনস ডে। দিবসটি শুধুই নারীর। এই দিনে মেয়েরা তাঁদের বন্ধুত্ব উদযাপন করেন।
নারী-বন্ধুত্বের এই দিনটি জনপ্রিয় হয়েছে মার্কিন টিভি শো ‘পার্কস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন’-এর একটি পর্ব থেকে, ২০১০ সালে যেটি সম্প্রচারিত হয়েছিল।
মার্কিন অভিনেত্রী এমি পোয়েলার, যিনি ওই শোতে লেসলি নোপের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন, তিনিই তাঁর নারী বন্ধুদের সঙ্গে বার্ষিক গ্যালেন্টাইস ডে উদযাপনের অর্থ ব্যাখ্যা করেন।

‘গ্যালেন্টাইনস ডে কী? এটিই একমাত্র বছরের সেরা দিন,’ ওই শোর দ্বিতীয় মৌসুমের ১৬তম পর্বে বলেছিলেন নোপ।
‘প্রতি ১৩ ফেব্রুয়ারি আমার মেয়েবন্ধুরা ও আমি আমাদের স্বামী ও প্রেমিকদের ছাড়াই ঘরে উদযাপন করি, একেবারে ব্রেকফাস্ট স্টাইলে। এ শুধু মেয়েদের উদযাপন।’
সাম্প্রতিক বছরগুলোতে গ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন বেড়েছে। একা হোক অথবা সম্পর্কে জড়ানো, দিনটি নারী-বন্ধুত্ব শক্তিশালী করার জন্য অনন্য হয়ে উঠছে।
তবে অনেকে এর বিরুদ্ধমতও প্রকাশ করেছেন। তাঁরা বলছেন, নারীর মধ্যকার নিবিড় বন্ধন শুধু বছরের একটি দিনেই নয়, বছরজুড়েই উদযাপন করা উচিত।
‘অজনপ্রিয় চিন্তাধারা, কিন্তু গ্যালেন্টাইনস ডে আমার কাছে ভ্যালেন্টাইনস ডের মতোই। মেয়েবন্ধুদের সঙ্গে উদযাপন করার জন্য আমার একটি দিনের প্রয়োজন নেই,’ মাইক্রো-ব্লগিং সাইট টুইটারে লিখেছেন সাংবাদিক পূর্ণা বেল।
অন্তর্জালভিত্তিক আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘ইউগভ’ ২০১৭ সালে একটি জরিপ চালায়, তাতে দেখা যায় ব্রিটিশদের বেশিরভাগই ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন অপছন্দ করেন। ওই জরিপে দেখা যায়, শুধু চার শতাংশ অংশগ্রহণকারী দিবসটি উদযাপন করতে ভালোবাসেন। ৮৭ শতাংশ অংশগ্রহণকারীর বিশ্বাস, বার্ষিক এই ইভেন্টটি খুব বেশি বাণিজ্যিক হয়ে গেছে।

রাশেদ/১৩/২/১৯

Comments are closed.