rockland bd

গুরুদাসপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নৌকার মাঝি হতে চান আনোয়ার হোসেন

0

মো. আনোয়ার হোসেন

উপজেলা প্রতিনিধি, গুরুদাসপুর (বাংলাটুডে) : নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, এলাকার উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় সহযোগী, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের নাম মো. আনোয়ার হোসেন। তিনি, তার উদ্দীপ্ত স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার আত্মপ্রত্যয় নিয়ে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য ঘোষণা দিয়েছেন। তার এই ঘোষণায় সম্ভাব্য অন্যান্য প্রার্থীরা নড়েচড়ে বসেছেন।
মো. আনোয়ার হোসেন ১৯৯৬ সালে বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভের পর ২০০২ সালে রাজশাহী এশিয়ান ইউনিভার্সিটি থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে মাস্টার্স পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। এখন নিজ ব্যবসার পাশাপাশি এলাকায় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের মাধ্যমে রাজনৈতিক অঙ্গনে ব্যাপক ভূমিকা রাখছেন।
বর্তমান নাটোর জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. আনোয়ার হোসেন ১৯৯৭-১৯৯৮ শিক্ষাবর্ষে বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা কলেজের ছাত্র সংসদের ভিপি ছিলেন। ২০০২ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত প্রায় একযুগ ধরে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এই আওয়ামীলীগ নেতা ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৬ অর্থ বছরে নাটোর জেলার সেরা করদাতার গৌরব অর্জন করে জাতীয় সম্মাননা পদক লাভ করেন। এমনকি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালনকালে তিনি নাটোর জেলার শ্রেষ্ঠ সভাপতি নির্বাচিত হন এবং জাতীয় পদক লাভ করেন।
তিনি উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিঠ চাঁচকৈড় নাজিম উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনা কমিটি ছাড়াও চাঁচকৈড় বালিকা দাখিল মাদ্রাসা, আনন্দনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দিঘদারিয়া বিলপানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি ও আত্রাই নদী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির সভাপতি এবং উপজেলা ট্রাক, ট্যাঙ্কলরি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও একই সংগঠনের শ্রমিক সমিতির উপদেষ্টা পদে অধিষ্ঠিত আছেন।
এছাড়াও একজন বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবকের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি উপজেলা আইন শৃংখলা বিষয়ক কমিটি, উপজেলা নারী ও শিশু নির্যাতন, বাল্যবিবাহ রোধ ও যৌতুক বিষয়ক কমিটি, উপজেলা সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ কমিটি, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিষয়ক কমিটির সক্রিয় সদস্য হিসেবে অদম্য ভূমিকা পালন করে চলেছেন।
বিশেষ করে এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে অধ্যাপক মো. আব্দুল কুদ্দুস এমপির আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি ‘মা জননী সেতু’ কেন্দ্রিক চলনবিলকে একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং এলাকার কারিগরি শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে ১৪ কোটি ৫১ লাখ ৭০ হাজার ৬২৮ টাকা ব্যয় বরাদ্দে আনন্দনগরে নির্মানাধীন গুরুদাসপুর টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ প্রতিষ্ঠার কাজে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। এখানে আসন্ন ২০২০ সালে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হবে বলে তিনি জানান। ইতিমধ্যে তার জ্ঞানলব্ধ অভিজ্ঞতাকে আরো বেগমান করার লক্ষ্যে ভারত, নেপাল, মালয়শিয়া, থাইল্যান্ড ও সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দেশ ভ্রমণের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন।
তিনি জানান, দলীয় মনোনয়নের মাধ্যমে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি গ্রামকে শহর বানানোর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবেন। একই সাথে স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আব্দুল কুদ্দুসের যাবতীয় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে গুরুদাসপুর ও বড়াইগ্রাম উপজেলাকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি।

মো. আখলাকুজ্জামান/আর এইচ

Comments are closed.