rockland bd

ভিড় এখন সেমাইয়ের দোকানে

0

বাংলাটুডে রিপোর্ট : ঈদকে সামনে রেখে প্রতিবছরই সেমাইয়ের চাহিদা আকাশচুম্বী হয়ে ওঠে। সারা বছর বাজারে যে সেমাই বিক্রি হয় তার প্রায় ৯০ শতাংশই বিক্রি হয় ঈদ মৌসুমে। ঈদে আপ্যায়নের অন্যতম অনুষঙ্গ সেমাই। শুধু অতিথি আপ্যায়নে নয়, অনেকেরই পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন শুরু হয় সেমাই খেয়ে। তাই ঈদের কেনাকাটার শেষ পর্যায়ে মানুষ এখন ছুটছে সেমাই-চিনি কিনতে।

গতকাল বুধবার রাজধানীর বিভিন্ন স্থানের মুদি দোকান ও সুপার শপগুলোয় সেমাই-চিনি কিনতে দেখা গেছে ক্রেতাদের।

গতকাল মিরপুর সাংবাদিক আবাসিক এলাকার একটি সুপার শপে বাজার করতে আসা সহিদুল ইসলাম সিকদার বলেন ঈদের দিন সকালে সেমাই খেয়েই দিন শুরু করে ঈদের নামাজে যাই। এ কারণে এ ঈদে সেমাই ছাড়া চলে না। তবে সেমাইটা কেনা হয় সবার শেষে।

এখন প্রতিটি দোকানে সামনেই থরে থরে সাজিয়ে রাখা হয়েছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সেমাই। এখানে বনফুল, প্রাণ, ওয়েল ফুড, কুলসন, কিশোয়ান, ড্যানিশ ও প্রিন্স ব্র্যান্ডের ২০০ থেকে ৫০০ গ্রাম লাচ্ছা সেমাই বিক্রি হচ্ছে । বিভিন্ন প্যাকেটজাত সেমাই ছাড়াও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ঘি, কিশমিশ, বাদাম, মসলা, দারুচিনি, এলাচি, গুঁড়ো ও তরল দুধ বিক্রি হচ্ছে।

গতকাল কারওয়ান বাজারের পাইকারি সেমাইয়ের দোকানগুলোয়ও ক্রেতাদের বেশ ভিড় দেখা গেছে। কারওয়ান বাজারের বিক্রেতারা বলেন, পোশাক কেনা শেষে লোকজন এখন সেমাই-চিনি কিনছেন। কারওয়ান বাজারে সব প্যাকেটজাত সেমাইয়ের প্যাকেটের গায়ে লেখা দামের চেয়ে পাঁচ টাকা কমে বিক্রি করা হচ্ছে। পাইকারি বাজার হওয়ায় সবাই এখানে কিনতে আসে।

ঈদ উপলক্ষে পোলাওয়ের চালও বেশ বিক্রি হচ্ছে। বাজারে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পোলাওয়ের চাল।

রাজধানীর পুরান ঢাকায় পাইকারী বাজারে চলছে শেষ মুহুর্তের সেমাই বিক্রি। যদিও এরিমধ্যে প্রায় ৮০ থেকে ৯০ ভাগ সেমাই বিক্রি হয়েছে। এবার ভ্রাম্যমান আদালতের দফায় দফায় অভিযানে জরিমানা করায়, সেমাই ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

দেশের বছরে সেমাইয়ের চাহিদা প্রায় এক লাখ টন। এরিমধ্যে ৮০ থেকে ৯০ হাজার টন সেমাই বিক্রি হয়, ঈদ-উল-ফিতরে। বাকি সেমাই বিক্রি হয় বছরজুড়ে। ঈদের দু’থেকে তিন মাস আগে থেকে কারখানায় এসব সেমাই উৎপাদন শুরু হয় এবং পুরোদমে বিক্রি চলে ২৫ রমজান পর্যন্ত।

পাইকারী বিক্রেতারা জানান, এক সময় অধিকাংশ সেমাই দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রি হলেও, বর্তমানে ঢাকার বাইরে কারখানা গড়ে ওঠায় কমেছে চাহিদা। উৎপাদন কম হলেও, দাম বাড়েনি বলেও জানান তারা।
বাংলাটুডে২৪/আরবি

Comments are closed.