rockland bd

রাজারহাটে ইউএনও’র উদ্যােগে সুন্দরের আশীর্বাদ

0

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
সোমবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:
মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা রূপকল্প ২০২১ এবং রূপকল্প ২০৪১ প্রণয়নের মাধ্যমে উন্নত বাংলাদেশের পথ নকশা তৈরি করে জাতিকে যে লক্ষ্য পূরণে ধাবিত করেছেন। তারই নেতৃত্বে কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহঃ রাশেদুল হক প্রধান হাজারো সীমাবদ্ধতাকে অতিক্রম করে উন্নত ও মডেল রাজারহাট হিসেবে তিনি উপজেলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিবিষ্ট মনে কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি রাজারহাট উপজেলায় যোগদান করার পরই রাজারহাট উপজেলার উন্নয়নের অগ্রযাত্রা চলছে দ্রুত গতিতে। সামাজিক এবং মানব উন্নয়নের অনেক সূচকেই এখন এগিয়ে যাচ্ছে। রাজারহাটে অভ্যন্তরে সর্বক্ষেত্রেই উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। রাজারহাট উপজেলা পরিষদের চিত্রই পাল্টে গেছে।

রাজারহাট উপজেলা পরিষদ চত্বর এখন সৌন্দর্যের এক অপরূপ লীলাভূমি। রাস্তা ধার ঘেঁষে বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের মনোরম বাগান এবং রাস্তার মোড়ে মোড়ে ইট সিমেন্টের তৈরি বসার বক্স সিট এবং চত্বরে সিসিটিভি স্থাপন ও মনিটরিং ব্যবস্থা। দৃষ্টিনন্দন পুকুর, দিগন্তজোড়া সবুজ বৃক্ষ আর অল্প কিছু শোভা বর্ধনকারী গাছ। অনুপম সৌন্দর্যে ভরপুর কোলাহলমুক্ত পরিবেশ। এ সৌন্দর্য আর রাস্তার দুধারে ইটে নতুন রঙের আলপনা যেকোনো ভ্রমণ পিপাসু মানুষকে উপজেলা চত্বরে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত।

শিশুরাই দেশ ও জাতির ভবিষ্যৎ। তাদের সুন্দরভাবে বেড়ে ওঠার জন্য প্রয়োজন উপর্যুক্ত পরিবেশ ও মানসিক বিকাশের সুযোগ। এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে উপজেলার ১৯৮৫ সালে স্থাপিত বেহাল শিশু পার্কটি এখন অত্যন্ত মনোরম পরিবেশে। এখানে শিশুদের খেলার উপযোগী দোলনা, স্লাইড, স্লিপার,ঢেঁকি, ছাঁতা, ইত্যাদি রয়েছে। ছায়া শীতল ছাঁতার নীচে; ইটে বসার আসন। গাছপালায় ঘেরা উপজেলা প্রশাসনিক ভবনের ঠিক সামনে অবস্থিত। নীল আকাশের নিচে অপরুপ মায়াবি আভা শিশু পার্ক করেছে রুপের রাণী। প্রতিদিন অসংখ্য শিশু এখানে এসে সময় অতিবাহিত করে।

উপজেলা ভূমি অফিস ছিল একসময় সেবাপ্রার্থীদের কাছে আতঙ্কের আরেক নাম। বর্তমানে সেখানে ঘুষ-দুর্নীতিমুক্ত পরিবেশে সেবা পাচ্ছে ভূমি মালিকরা। ভূমিসংক্রান্ত পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে হেল্প ডেস্কের মাধ্যমে এবং অনলাইনে নামজারি পাইলট প্রোগ্রাম হিসেবে চলছে।বসার চেয়ার,গাড়ী রাখার গ্যারেজ, প্রশিক্ষণ রুম কিংবা বিশুদ্ধ পানীয়র ব্যবস্থাও রয়েছে রাজারহাট উপজেলার ভূমি অফিসে। লাগানো হয়েছে গার্ডেন টাইলস।

উপজেলা বাসীর সুখ দুঃখের সঙ্গী তিনি তার কাছে গিয়ে নিরুপায় হয়ে ফিরে এসেছেন এমন অভিযোগ কারী রাজারহাটে বিরল।মানুষের পারিবারিক, সামাজিক থেকে শুরু করে এমন কোন কাজ নেই যে তিনি করে দেন নাই । মানুষের অভিযোগ নেওয়ার জন্য উপজেলায় তিনি অভিযোগ বাক্সস দিয়ে দিছেন , প্রতিদিনই খুলে দেখেন নতুন কোন অভিযোগ আছে কিনা।

উপজেলার মানুষদের করেছেন খেলামুখী। উপজেলায় প্রতিনিয়ত চলছে ফুটবল, ক্রিকেট, বেটমেন্টলসহ নানা রকম টুনামেন্ট। শুধু শিশু -কিশোর, যুবক-যুবতী নয় পাশাপাশি খেলছে বৃদ্ধরা।খেলাধুলা মাদক থেকে দুরে রাখে।সকল অপকর্ম থেকে বিরত রাখে।শারিরিক বিকাশ ও প্রতিভার প্রকাশ ঘটানোর জন্য খেলাধুলার গুরুত্ব অপরিসীম। তারই ধারাবাহিতায় তিনি শিক্ষক- শিক্ষার্থীদের হাতে তুলেন দেন ক্রীড়া সামগ্রী।

এ ছাড়া তিনি রাজারহাটে বাল্য বিবাহ,ইভটিজিং, সন্ত্রাস,জঙ্গীদমনে নিয়েছেন নানামুখী পদক্ষেপ ছাএ, শিক্ষক , অভিভাবকদের জঙ্গীবাদের কুফল সর্ম্পকে করেছেন সচেতেনতা।জনপ্রতিনিধিদের প্রশাসনের সাথে সম্বন্নয় করে এনেছেন জবাবদিহিতা । সাফল্য স্বরুপ পেয়েছেন রাজারহাট উপজেলাবাসীর ভালবাসা।

উপজেলা নিবার্হী অফিসার মুহঃরাশেদুল হক প্রধান বলেন , মানুষের জন্য কিছু করতে পারলেই আমার স্বার্থকতা । কতুটুকু করতে পেরেছি তার মূল্যায়ন আমি করতে পারি নাই । বর্তমান সরকারের ভিষন কে জনগনের দোড় গড়ায় সততার সহিত পৌছে দেওয়ার চেষ্টা করছি মাত্র ।

এ.এস.লিমন/রাকিব

Comments are closed.