rockland bd

সন্তান প্রশিক্ষণে মা ফাতিমার শিক্ষা

0


ডেস্ক প্রতিবেদন

শনিবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:
একজন মুসলমানের প্রতি অন্য মুসলমানের অনেক অধিকার রয়েছে। সেসব অধিকার কিন্তু আমরা প্রথমেই প্রতিবেশীর ব্যাপারে আদায় করতে পারি। তাহলে ইসলামের নির্দেশ যেমন মানা হবে তেমনি প্রতিবেশীদের সাথে সম্পর্কও বৃদ্ধি পাবে। এসব অধিকার বা কর্তব্যের কয়েকটি হলো, প্রতিবেশীকে সালাম দেওয়া, তার সালামের উত্তর দেয়া, কেউ অসুস্থ হলে তার সেবা-শুশ্রূষা করা, বিভিন্ন উপলক্ষে তাকে দাওয়াত দেয়া এবং তার দাওয়াতে অংশ গ্রহণ করা ইত্যাদি।
ইমাম হাসান(আ.) তার মায়ের মতই প্রতি রাতে বিছানা থেকে উঠে ওজু করে মায়ের পাশে নামাজে দাঁড়াতেন। মায়ের সাথে নামাজ পড়ার সময় তিনি একটা ব্যাপার লক্ষ্য করেন। মা নামাজ শেষে মোনাজাত করছেন, কেঁদে কেঁদে আল্লাহর কাছে দোয়া করছেন প্রতিবেশীদের মঙ্গলের জন্য,তাদের গোনাহ মাফের জন্য। কিন্তু নিজেদের জন্য কিছুই প্রার্থনা করছেন না! এভাবে বেশ কিছুদিন যাওয়ার পর তিনি মাকে জিজ্ঞেস করলেন, মা, মোনাজাতের সময় আপনি কেবল পাড়া-প্রতিবেশীর মঙ্গল কামনা করেন, নিজের জন্য বা আমাদের কারও জন্য তো দোয়া করেন না! এর কারণ কি?
স্নেহময়ী মা এবার ছেলেকে আদর করে বুকে টেনে নিয়ে বললেন, বাছা আমার! আমি কেন ওরকম করি? তুমি জেনে রেখো, প্রতিবেশীর হক আগে। প্রতিবেশীর মঙ্গল কামনা করলে, তাদের খোঁজখবর নিলে আল্লাহ তায়ালা খুব খুশী হন। তাই আমি তাদের জন্য দোয়া করি। তবে তোমাদের জন্যও দোয়া করি। তবে প্রতিবেশীর অধিকার আগে,এটা মনে রাখবে-কেমন?-ইকনা

এবিএস

Comments are closed.