rockland bd

পরকীয়ার জের ধরে মাছ ব্যবসায়ীকে হত্যা

0

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
শুক্রবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:

পরকীয়ার জের ধরে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় মাছ ব্যবসায়ী মোক্তার হোসেনকে (৪৫) হত্যার পরে নিজ বাড়িতে ৪ দিন ড্রামের মধ্যে ভরে রাখে ঘাতক স্বামী আরিফ মোল্লা (৪৬) ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী ফাহমিদা আক্তার ফালানী। পরে তার লাশভর্তি ওই ড্রামটি পুরান বন্দর প্রধান বাড়ি এলাকার রাস্তার পাশে ফেলে দেয় স্বামী স্ত্রী।
গতকাল বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মিল্টন হোসেনের আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে ঘাতক স্বামী আরিফ মোল্লা।
জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক গিয়াস উদ্দিন জানান, ঘাতক আরিফ মোল্লার দ্বিতীয় স্ত্রী ফাহমিদা আক্তার ফালানীর সঙ্গে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক ছিল মাছ ব্যবসায়ী মোক্তার হোসেনের। বিষয়টি স্বামী আরিফ মোল্লা জানতে পেরে দ্বিতীয় স্ত্রী ফলানীকে দিয়ে মোক্তারকে তাদের বাড়িতে ডেকে আনে। এসময় তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে মোক্তারকে শ্বাসরোধে হত্যা করে আরিফ মোল্লা। পরে নিহত মোক্তারের লাশ একটি ড্রামের মধ্যে ভরে ৪ দিন নিজেদের বাড়িতেই রেখে দেয় স্বামী আরিফ মোল্লা ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী ফাহমিদা আক্তার ফালানী। পরে লাশভর্তি ওই ড্রামটি পুরান বন্দর প্রধান বাড়ি এলাকার রাস্তার পাশে ফেলে দেয় তারা।

উল্লেখ্য এর আগে গত ১৬ ডিসেম্বর রাতে একটি পুকুরের মাছ পাহারা দেওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয় মোক্তার হোসেন। পরদিন সকালে বাসায় ফিরে না আসায় বিকেলে বন্দর থানায় তার স্ত্রী শিল্পী বেগম বাদী হয়ে নিখোঁজের জিডি দায়ের করেন। ২০ ডিসেম্বর সকালে পুরান বন্দর প্রধান বাড়ি এলাকার রাস্তা থেকে ওই লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে তার স্ত্রী বাদি হয়ে অজ্ঞাত নামা আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। নিহত মোক্তার হোসেন ওই এলাকার মৃত হাজী আবুল হাশেমের ছেলে। তিনি নিজের মৎস খামারের ও কৃষি জমিতে ফসলের ব্যবসা করতেন। তার স্ত্রী, তিন মেয়ে ও একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। তার বড় মেয়ে নারায়ণগঞ্জ কলেজে অনার্সের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। মেঝ মেয়ে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ছে, ছোট মেয়ে ও একমাত্র ছেলে স্থানীয় মাদ্রাসায় লেখাপড়া করে।
মোঃ মামুন মিয়া/রাকিব

Comments are closed.