rockland bd

গাইবান্ধা-৫ আসনে নৌকা লাঙ্গল ধানের শীষে হবে ত্রিমুখী লড়াই

0

গাইবান্ধা-৫ আসনে নৌকা লাঙ্গল ধানের শীষে হবে ত্রিমুখী লড়াই

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
বুধবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন গাইবান্ধা-৫ (সাঘাটা-ফুলছড়ি) নির্বাচনী এলাকায় ভোটের দিন ঘনিয়ে আসায় প্রার্থীদের প্রচারপ্রচারণা তুঙ্গে উঠেছে। প্রার্থীরা দলীয় নেতা কর্মী ও সর্মথকদের নিয়ে সকাল থেকে গভীররাত পর্যন্ত ভোটারদেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিজেদের পক্ষে ভোট প্রার্থনা করে চলেছে।
পাশাপাশি প্রার্থীরা উঠান বৈঠক, জনসমাবেশ করে চলেছেন নির্বাচনী এলাকায়। পথে ঘাটে ,হাটে-বাজারে ও হোটেল রোস্তরা ও চায়ের দোকানগুলোতে ভোটারদের মুখে মুখে বিভিন্ন দলীয় প্রার্থীদের নিয়ে চলছে নানা হিসাব নিকাশ।
সাঘাটা ও ফুলছড়ি দুটি উপজেলা নিয়ে গঠিত গাইবান্ধা আসন । এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৩ হাজার ৬ শ’ ২৯ জন, এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৪ হাজার ৩১ জন ,নারী ভোটার ১ লাখ ৫৯ হাজার ৫শ’৯৮ জন।
এবার মহাজোট প্রার্থী আওয়ামী লীগের প্রবীণ রাজনীতিক প্রার্থী এ্যাড.ফজলে রাব্বী মিয়া নৌকা ,জাতীয় পার্টির (এ) দলীয় প্রার্থী সাবেক সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ্যাড. এ এইচ এম গোলাম শহীদ রঞ্জু (লাঙ্গল), কৃষক লীগ থেকে বিএনপিতে যোগদানকারী ফারুক আলম সরকার (ধানের শীষ) ,বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী আঃ রাজ্জাক মন্ডল (হাতপাখা), বামগণতান্ত্রিক জোটের সিপিবি’র যজ্ঞেশ্বর বর্মণ (কাস্তে) ভোটযুদ্ধে নেমেছেন।
তবে মহাজোটের হেভিওয়েট প্রার্থী এ্যাড.ফজলে রাব্বী মিয়ার পক্ষে সবচেয়ে বেশী প্রচার প্রচারণা চলছে । এবারও এলাকায় নৌকার পাল্লা অনেকটা ভারী বলে বিভিন্ন এলাকায় খোজ নিয়ে জানা গেছে। তারপরই রয়েছেন জাপার এ্যাড. এ এইচ এম গোলাম শহীদ রঞ্জুর অবস্থান। বিএপি’র ফারুক আলম সরকার ও বসে নেই তিনিও ভোটযুদ্ধে চ্যালেঞ্জের মুখামুখী পৌছার চেষ্টায় রয়েছেন।
এ আসন থেকে এ্যাড.ফজলে রাব্বী মিয়া ৬ বার এমপি নির্বাচিত হন। ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর তার রাজনৈতিক দক্ষতার কারণে প্রধানমন্ত্রী তাকে ডেপুটি স্পীকার নির্বাচিত করেন।
সাঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক শাহ মোখলেছুর রহমান,যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নাছিরুল আলম স্বপন জানান, বর্তমানে নৌকার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে ।এ্যাড. ফজলে রাব্বী এ দু’টি উপজেলার ব্যাপক উন্নয়ন এবং সাধারণ মানুষের কল্যানে কাজ করার দৃঢ মানসিকতা সম্পন্ন ব্যক্তি হিসেবে ভোটাররা আবারও নৌকায় ভোট দিয়ে তাকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করবেন।
সাঘাটা উপজেলা জাপা সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ্যাড. এ এইচ এম গোলাম শহীদ রঞ্জ এলাকার সাধারণ মানুষের আস্তা অর্জন করায় দু’বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে তার নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ সভা সমাবেশ করে চলেছেন। তিনি বিজয়ী হওয়ার শতভাগ নিশ্চিত বলে জানান।
বিএনপি প্রার্থী ফারুক আলম সরকারও থেমে নেই। তিনি জয়ের লক্ষে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। অতীতে কোনো জাতীয় নির্বাচনে এ আসনে বিএনপি ভাল অবস্থানে যেতে না পারলেও এবার দ্বিতীয় জাতীয় পার্টির চেয়ে ভালো অবস্থান নেওয়ার সম্ভাবনা বেশী বলে বিএপির নেতা কর্মীরা মনে করেন।

শাহজাহান সিরাজ/আর এইচ

Comments are closed.