rockland bd

সাদুল্যাপুরে গ্রেফতার আতঙ্কে দুটি গ্রাম

0

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি
সোমবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:

পুলিশের উপর গত শুক্রবার সন্ধ্যায় হামলার ঘটনায় সাদুল্যাপুর থানায় ১৩৮ জনের নাম উলেখ করে এবং অজ্ঞাত ১৫০ থেকে ২০০ জনকে আসামি করে মামলা দায়েরের ঘটনায় উপজেলার তরফবাজিত ও পাশ্ববর্তী হামিন্দপুর গ্রাম দু’টি এখন গ্রেফতার আতংকে পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। ওই ঘটনায় এ পর্যন্ত ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এলাকার লোকজন এখন উপজেলা সদরেও যেতে ভয় পাচ্ছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে সাদুল্যাপুর-মীরপুর সড়কের তরফবাজিত এলাকায় রেজাউল করীম রেজার চাতাল সংলগ্ন (নলডাঙ্গা মোড়) এলাকায় প্রাইভেট কারের সাথে অটোরিক্সার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে অটোরিক্সা যাত্রী রেনু বেগম (৬০) আহত হন। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় লোকজন বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। তারা চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান মন্ডলের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ লোকজন পুলিশের ওপর হামলা করলে ওই দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে আহত বৃদ্ধাসহ ইউপি চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে।
ওই ঘটনার পর পুলিশ ১৪ জনকে আটক করায় তরফবাজিত ও হামিন্দপুর গ্রামের লোকজন বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে। পরে ওইদিন রাত সাড়ে ৭টার দিকে দুই গ্রামের বিক্ষুদ্ধ জনতা সাদুল্যাপুর থানার সামনে ও চৌ-মাথা মোড়ে অবস্থান নিলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয় এবং বিক্ষুব্ধ জনগণকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়। এ আতঙ্কে সে সময় শহরের দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। গ্রেফতারের বিষয়ে উপজেলা সদরের ব্যবসায়িরা অভিযোগ করেন সাদুল্যাপুর বণিক সমিতির সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপনসহ কয়েকজন নিরীহ লোককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। তারা ওই ঘটনার সাথে জড়িত ছিল না। তারা বলেন, ওই লোকগুলোকে অহেতুক গ্রেফতার করা হয়েছে।
সাদুল্যাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) এমরানুল কবীর জানান, হামলার ঘটনায় পুলিশের এএসআই হেলাল উদ্দিন ও কনস্টেবল আবদুল কাফী আহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধার করে প্রথমে সাদুল্যাপুর উপজেলা হাসপাতালে এবং পরে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পুলিশের উপর হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আটক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করীম রেজার ছোট ভাই আশরাফুল ইসলাম।
সাদুলাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আরশেদুল হক জানান, পুলিশের কাজে বাধা দেয়া ও হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলর বাদি এসআই আনোয়ার হোসেন জানান, এ পর্যন্ত ১৪ জনকে আটক করা হয়েছে। অন্যান্যদের গ্রেফতার অভিযান অব্যহত আছে।

শাহজাহান সিরাজ/রাকিব

Comments are closed.