rockland bd

নীলফামারীর ৪টি আসনে ১৫ জনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

0

নীলফামারী প্রতিনিধি
বুধবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে নীলফামারীর চারটি সংসদীয় আসনে ১৫জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ একজন, জাতীয় পার্টি দুই জন, ইসলামী আন্দোলন চার জন এবং স্বতন্ত্র আট জন প্রার্থী রয়েছেন।
নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নির্বাচনী তফসীল ঘোষণা হওয়ার পর জেলা রিটার্নিং ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে গত ২০ নভেম্বর পর্যন্ত তারা মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন।
আগামী ২৮ নভেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়ন সংগ্রহ ও জমা দিতে পারবে প্রার্থীরা বলে জানান জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ফজলুল করিম।

নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য তিনজন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী ন্যাশনার পার্টি (বাংলাদেশ ন্যাপ) একজন, ইসলামী আন্দোলন একজন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে জামায়াতের একজন প্রার্থী রয়েছেন।
তাদের মধ্যে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (বাংলাদেশ ন্যাপ) চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি। ১৯ নভেম্বর সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা কার্যালয় থেকে তাঁর পক্ষে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন দলটির ডোমার উপজেলা শাখার আহবায়ক জগবন্ধু রায়।
স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জেলা জামায়াতে ইসলামীর সেক্রটারী আব্দুস সাত্তার মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন। গত ১৩ নভেম্বর তাঁর পক্ষে মনোনয়ন সংগ্রহ করেন ডোমার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা জামায়াতের আমীর মো. আব্দুল হাকিম।
অপর দিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নীলফামারীর ডোমার উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সাইফুল ইসলাম মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন।
নীলফামারী-২ (সদর) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে এখন পর্যন্ত চার জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।
এদের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দলীয় হিসেবে বর্তমান সংসদ সদস্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। গত ২০ নভেম্বর জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে মনোনয়ন পত্র সংগ্র করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুরের ব্যক্তিগতসহকারী মো. তরিকুল ইসলাম।
এছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন জেলা জামায়াতের নায়েবে আমীর মনিরুজ্জামান মন্টু। গত ১৩ নভেম্বর সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা (সদর) কার্যালয় থেকে তিনি নিজেই মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন।
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন দলটির জেলা শাখার যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মো. জহুরুল ইসলাম।
অপর দিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন মো. এজানুর রহমান।
নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত পাঁচজন মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।
এর মধ্যে জাতীয় পার্টির একজ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একজন এবং স্বতন্ত্র ৩জন প্রার্থী রয়েছেন।
তারা হলেন জাতীয় পার্টির পক্ষে ডা. মো. বাদশা আলমগীর। গত ১৯ নভেম্বর নিজেই মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন।
অপর দিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় মজলিশে সূরা সদস্য ও রংপুর বিভাগীয় টীমের নেতা মো. আজিজুল ইসলাম। গত ১৩ নভেম্বর সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে তিনি নিজেই মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন
এছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন জলঢাকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ সৈয়দ আলী। জামায়াতের সমর্থনে তিনি পর পর দুই বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সদ্য তিনি বিএনপি যোগদান করেন।
এছাড়াও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন দলটির জলঢাকা শাখার সভাপতি মো. আমজাদ হোসেন। এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন ছাইদুল হক বসুনিয়া।
নীলফামারী-৪ (কিশোগঞ্জ-সৈয়দপুর) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য এখন পর্যন্ত চারজন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।
এর মধ্যে জাতীয় পার্টির একজন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একজন এবং স্বতন্ত্র ২ জন প্রার্থী রয়েছেন।
জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন সংগ্রহ করেন কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুরা গ্রামের আহসান আদেলুর রহমান আদেল। তিনি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের ভাগ্নে।
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দলীয় প্রার্থী মো. শহীদুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বসুন্ধরা কিংসের সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজ ও মো. ফরহাদ হোসেন মনোয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।

বিজয় চক্রবর্তী কাজল/আর বি

Comments are closed.