rockland bd

চালু হচ্ছে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ পদক

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা
মঙ্গলবার, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর:

মানবাধিকার, সামাজিক নিরাপত্তা, বয়স্ক ও বিধবাদের কল্যাণ, সুবিধাবঞ্চিতদের আইনি সহায়তা প্রদানসহ পাঁচটি খাতে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রতিবছর পাঁচ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে মাদার অব হিউম্যানিটি পদকে ভূষিত করা হবে।

গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এমন পুরস্কারের প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কাছ থেকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ উপাধিটি পান। এ কারণেই এই নামে পদকটির প্রবর্তন করা হলো।

পদকে থাকবে ১৮ ক্যারেটের ২৫ গ্রাম ওজনের সোনার পদক, দুই লাখ টাকা, ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ রেপ্লিকা, সমাজকল্যাণ সম্মাননা সনদ। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, প্রতিবছর জুলাইয়ে যাচাই-বাছাই শুরু হয়ে দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে পরবর্তী বছরের শুরুতে ২ জানুয়ারি এই পদক ঘোষণা দেওয়া হবে। যাচাই-বাছাইয়ের জন্য জেলা ও কেন্দ্রীয় পর্যায়ে পৃথক দুটি কমিটি থাকবে। চূড়ান্ত বাছাইয়ের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান হবেন একজন জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী। স্বাধীনতা পদকসহ রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ পদকগুলোর মানের মতোই এ পদকের মান হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

যে পাঁচ ক্ষেত্রে পদক দেওয়া হবে:
১. বয়স্ক, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের কল্যাণ ও পুনর্বাসনে অবদান।
২. প্রান্তিক, অনগ্রসর ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর সামাজিক সুরক্ষা, আত্মনির্ভরশীলকরণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি।
৩. প্রতিবন্ধী ও নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কল্যাণ, জীবনমান উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, ইনক্লুসিভ শিক্ষা বাস্তবায়ন ও সামাজিক সুরক্ষায় উল্লেখযোগ্য অবদান।
৪. সুবিধাবঞ্চিত, আইনের সংস্পর্শে আসা, আইনের সঙ্গে সংঘাতে জড়িত শিশু, কারামুক্ত কয়েদি, ভবঘুরে ও নিরাশ্রয় ব্যক্তিদের কল্যাণ, উন্নয়ন, পুনরেকত্রীকরণ।
৫. কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের এমন কোনো কর্ম যা সমাজের মানুষের মেধা ও মননের বিকাশ, জীবনমান ও পরিবেশের উন্নয়ন, সমাজবদ্ধ মানুষের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়ন ও সর্বোপরি মানবকল্যাণ ও মানবতাবোধে সমাজ বা রাষ্ট্রকে ইতিবাচকভাবে প্রভাবিত করার কার্যক্রম।

বাংলাটুডে/আর বি

Comments are closed.