rockland bd

মাতৃভাষা দিবসে নিঃসঙ্গ মায়েদের মুখে হাসি ফোটালো ‘ফ্রেন্ডস ফর এভার’

0

বাংলাটুডে২৪ রিপোর্ট
২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭,বুধবার
‘মা, কথাটি ছোট্ট অতি, কিন্তু যেন ভাই, ইহার চেয়ে মধুর নাম যে ত্রিভুবনে নাই’।
বয়সের ভারে জীবন যখন আর চলে না তখন সন্তান ও আপনজনের সান্নিধ্য যেন কাজ করে ওষুধের মতই।
কিন্তু, কিছু মানুষের ভাগ্যটা একটু মন্দই। জীবনভর যে সন্তানের ভবিষ্যৎ গড়েছেন তাদের কাছেই তিনি হয়ে পড়েন বোঝা। ফলে ঠাঁই হয় বৃদ্ধাশ্রমে। মাতৃভাষা দিবসে রাজধানীর উত্তরাস্থ আপন নিবাস বৃদ্ধাশ্রমে নিঃসঙ্গ মায়েদের মুখে হাসি ফোটালেন প্রাণোচ্ছ্বল কিছু তরুণ-তরুণী। মাতলেন আড্ডায়-আনন্দে।
চার দেয়ালে বন্দি ফিকে জীবন। পৃথিবীটাও তাদের কাছে ধূসর পাণ্ডুলিপি। জীবনের শেষ পর্বে এসে পরিবার থেকেও নেই। বলছিলাম রাজধানীর উত্তরাস্থ আপন প্রবীণ নিবাসের কথা। যেখানে নিঃসঙ্গ মায়েদের প্রত্যেকটা দিন কাটে চাপা কান্না আর নিঃসঙ্গতায়।
অসহায়, দুঃস্থ, অবহেলিত ও নিঃস্ব বৃদ্ধা মায়েদের জন্য মানবিক সহযোগিতা দানে এবারের মাতৃভাষা দিবসে ব্যতিক্রমধর্মী উদোক্ত গ্রহণ করেছে ‘ফ্রেন্ডস ফর এভার’, উত্তরা ঢাকা। কয়েকজন বন্ধু মিলে মহান মাতৃভাষা দিবসে উত্তরাস্থ আপন নিবাস বৃদ্ধাশ্রমে নিঃস্ব মায়েদের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীসহ নগদ অর্থ প্রদান করে।
একাকীত্ব আর কষ্টে ভরা এই মানুষগুলোর জীবনে এক চিলতে আনন্দের মুহূর্ত আনার প্রাণান্ত চেষ্টা ছিলো ফ্রেন্ডস ফর এভার, উত্তরা ঢাকার স্বপ্নবাজ তরুণ-তরুণীদের।
এদের একজন বিইউএফটি’র সিনিয়র এডমিন অফিসার অাবিদ হোসেন। তিনি বলেন, এ ধরনের কর্মকান্ডে যুব সমাজকে এগিয়ে আসার উচিৎ।
মাতৃভাষা দিবসে এই তরুণ-তরুনীদের সাথে খাওয়া-দাওয়া, আড্ডা আর হৈ-হুল্লোরে প্রবীণরাও যেন ফিরে গেছেন তারুণ্যে ভরা সময়ে। হিংসা আর হতাশার দেয়ালে নতুন আশার বীজ বুনতে পারে, ভালোবাসা। তাই একে কোনো নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে রাখতে চান না এই স্বপ্নবাজরা, বলেন অাবিদ হোসেন।
ফ্রেন্স ফর এভার যেন আবারও সবাইকে মনে করিয়ে দিল, বৃদ্ধ মায়েদের জায়গা বৃদ্ধাশ্রম নয়। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত মা-বাবা’র দেখা শোনার দায়িত্ব সন্তানদেরই।

Comments are closed.