rockland bd

সংলাপ সফল না হলে আন্দোলনেই সমাধান দেখছে ঐক্যফ্রন্ট

0

সংলাপ সফল না হলে আন্দোলনেই সমাধান দেখছে ঐক্যফ্রন্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর-
আমি কোনো দলের সদস্য হিসেবে বলছি না, দেশের মালিক হিসেবে আপনারা দাঁড়িয়ে যান। যেভাবে মানুষকে বন্দি করা হচ্ছে এভাবে এটা করা যায় না। এসব অবৈধ, অপরাধ। এসব থেকে মানুষকে মুক্ত করতে হবে।
আজ মঙ্গলবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে ড কামাল হোসেন এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, সরকার বলেছিল ৫ জানুয়ারির পর আরেকটা নির্বাচন দিবে। কিন্তু তারা দিলেন না। একবছর, দুইবছর করে পুরো ৫ বছর ক্ষমতায় থাকলেন। এই সরকারের কথায় এক পয়সাও দাম নেই। ৫ জানুয়ারের নির্বাচনের মাধ্যমে তা প্রমাণ হয়েছে।
বক্তব্যের শুরুতেই খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন আমি খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করি। বিরোধী দলের নেত্রীকে শ্রদ্ধা না জানালে গণতন্ত্র চলতে পারে না।
কামাল হোসেন বলেছেন, আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি, ঐক্যবদ্ধ থাকবো। সমবেত হয়ে সিদ্ধান্ত নেবো অন্যায় থেকে দেশকে মুক্ত হতে হবে। আমাদের সবাইকে মিলে পাহাড়াদার হতে হবে। সুষ্ঠু ভোটের জন্য শপথ নিন। সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকবেন কারো সঙ্গে আপস করবেন না।
আগামীকাল ৭ নভেম্বর গণভবনে সংলাপ সফল না হলে এবং দাবি না মানলে পরদিন (৮ নভেম্বর) রাজশাহী অভিমুখে রোডমার্চ পালিত হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। এর পরদিন (৯ নভেম্বর) রাজশাহীতে জনসভা হবে। একে একে খুলনা ও বরিশাল অভিমুখেও রোডমার্চ হবে।
সংলাপে দাবি না মেনে তফসিল ঘোষণা করা হলে নির্বাচন কমিশন ভবন অভিমুখে পদযাত্রা করবে ঐক্যফ্রন্ট।
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার বক্তব্যে এ ঘোষনা দেন।
ঐক্যফ্রন্টের এ মুখপাত্র আরো বলেন, আগামীকাল আবার ছোট সংলাপ হবে। আমরা সংলাপে বিশ্বাস করি। কিন্তু নাটক করলে চলবে না। আপনাকে (প্রধানমন্ত্রী) সরে যেতে হবে। সংসদ ভেঙে দিতে হবে। আমাদের দাবি দাওয়া মেনে নিতে হবে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে।
সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। সভাপতিত্ব করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। প্রধান বক্তা ছিলেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব।
এছাড়া সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, ডা. জাফরুল্লাহ, মাহমুদুর রহমান মান্না, আ স ম আবদুর রব, সুলতান মো. মনসুর, মোস্তফা মহসীন মন্টু, আবদুল মালেক রতন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আবদুল মঈন খান।

আর এইচ

Comments are closed.