rockland bd

গাইবান্ধায় কষ্টি পাথরের মুর্তি পাচারের অভিযোগে দুই পুত্রসহ পুরোহিত গ্রেফতার

0

গাইবান্ধা প্রতিনিধি, বাংলাটুডে টোয়েন্টিফোর-
গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর থানা পুলিশ মন্দিরের কষ্টি পাথরের মুর্তি আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে পুরোহিতসহ ৩ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে।
জানা গেছে, সাদুল্যাপুর উপজেলার বনগ্রাম ইউপির দক্ষিণ মন্দুয়ার গ্রামের বারোয়ারি কালি মন্দিরের অবকাঠামো ভালো না হওয়ায় মন্দির কমিটি ২০ কেজি ওজনের আনুমানিক ১২ লক্ষ টাকা মূল্যের একটি কষ্টি পাথরের শিব লিঙ্গ দক্ষিণ মন্দুয়ার গ্রামের পুরোহিত শ্রী অনিল চন্দ্র চক্রবর্তীর নিকট জমা রাখা হয়।

গাইবান্ধায় কষ্টি পাথরের মুর্তি পাচারের অভিযোগে দুই পুত্রসহ পুরোহিত গ্রেফতার

পরে মন্দির কমিটির লোকজন পুরোহিতের বাড়িতে গিয়ে তার নিকট জমা রাখা শিব লিঙ্গটি দেখতে চাইলে তিনি তালবাহানা করে কালক্ষেপণ করেন।
এতে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায় ও মন্দির কমিটির সদস্যদের মাঝে সন্দেহের সৃষ্টি হলে পুরোহিত ও সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
এরপর গত ২৫ অক্টোবর হিন্দু সম্প্রদায় ও মন্দির কমিটির সদস্যরা ওই পুরোহিতের বাড়িতে শিবলিঙ্গটি উদ্ধার করতে যায়।
এ সময় পুরোহিত ও তার লোকজন মন্দির কমিটির সদস্যদের মারপিটের উদ্দেশ্যে ধাওয়া করে।
এ ঘটনার পর মন্দির কমিটির সদস্যগণ, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও জনগনকে সাথে নিয়ে কষ্টি পাথরের শিব লিঙ্গটি উদ্ধার করতে থানা পুলিশের স্মরণাপন্ন হয়।
থানা পুলিশ, ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায় সম্মিলিতভাবে অভিযুক্ত পুরোহিতের কাছ থেকে কষ্টি পাথরের শিব লিঙ্গটি উদ্ধার করতে ব্যর্থ হলে নিরুপায় হয়ে দক্ষিণ মন্দুয়ার বারোয়ারী কালি মন্দিরের সভাপতি শ্রী অনিল চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে গত ১ নভেম্বর সাদুল্যাপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করে, যার মামলা নম্বর- ৪।
২ নভেম্বর সাদুল্যাপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে উক্ত পুরোহিত শ্রী অনিল চন্দ্র চক্রবর্তীকে তার নিজ গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে এবং আজ রবিবার বিকেলে পুরোহিতের দুই ছেলে শ্রী উজ্জ্বল চন্দ্র চক্রবর্তী ও শ্রী শয়ন চন্দ্র চক্রবর্তীকে গাইবান্ধা শহর থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

শাহজাহান সিরাজ/আর এইচ

Comments are closed.