rockland bd

ডোনাল্ড ট্রাম্প আমেরিকার প্রেসিডেন্ট

0

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৯ নভেম্বর ২০১৬, বুধবার :
আমেরিকা জয় করলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিতর্ক সমালোচনা সবকিছু ছাপিয়ে তিনিই এখন হোয়াইট হাউজের ৪৫ তম অধিকর্তা। সকল জরিপকে মিথ্যা প্রমাণ করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে জয়লাভ করেছেন।
নির্বাচনে জয়লাভ করার বিজয়ী ভাষণে ডোনাল ট্রাম্প বলেছেন, তিনি সকলের সাথে একসঙ্গে কাজ করবেন। ভাষণের শুরুতেই সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়ে ট্রাম্প জানান, কিছুক্ষণ আগে আমাকে ডেমোক্রেট দলের প্রার্থী হিলারি ফোন করে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। আমিও তাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, এবং বলেছি আসুন আবার একত্রে আমেরিকাকে গ্রেট করে তুলি।
ট্রাম্প বলেন, এসময় আমাদের উচিত একসঙ্গে কাজ করা। আমাকে যারা সমর্থন করেনি আমি তাদের কাছে গিয়ে দেশের উন্নতির জন্য একসঙ্গে কাজ করতে উৎসাহিত করব। তিনি বলেন, একসঙ্গে কাজ করে আমাদের স্বপ্নের আমেরিকা গড়বো। এতোদিন আমরা পৃথিবীর মানুষের জন্য করেছি, এখন আমাদের নিজেদের জন্য কাজ করবো।
ট্রাম্প বলেন, আমরা রাস্তা, সেতুসব তৈরি করেছি। এখন আমরা আমাদের জনশক্তিকে কাজে লাগিয়ে নতুন যুক্তরাষ্ট্র গড়বো। যা আমাদের দেশের জন্য ভালো হবে। কোনো স্বপ্নই বড় না, যদি পরিশ্রম করা যায়। আমরা আমাদের স্বপ্ন সফল করবো। আমারিকার জনগণ বিশ্বের সকলের জন্য কাজ করবে। আমি ধন্যবাদ জানাই আমার পিতা মাতাকে। আমি তাদের থেকে অনেক শিখেছি। আমি আমার ভাই রবার্ট ও বোনকে ধন্যবাদ জানাই । ধন্যবাদ আমার স্ত্রী ও সন্তান ও পুত্রকে। আমি তোমাদের ভালোবাসি। এটা অনেক কঠিন ছিলো। বলতেই হবে রাজনীতি অনেক নোংরা।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হতে হলে ২৭০টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের প্রয়োজন ছিলো। এখন পর্যন্ত বিজয়ী ডোনাল ট্রাম্প ২৭৬টি ইলেকটোরাল কলেজ ভোট পেয়েছেন। আর তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ ডেমোক্রেট দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন পেয়েছেন ২১৮টি।
যুক্তরাষ্ট্রের নিয়মে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের মাধ্যমে। জনসংখ্যার ওপর ভিত্তি করে প্রতিটি অঙ্গরাজ্যে ইলেকটোরাল ভোট সংখ্যা নির্ধারিত হয়। একটি রাজ্যে যে প্রার্থী সবচেয়ে বেশি ভোট পাবেন, ওই রাজ্যের ইলেকটোরাল ভোটগুলো তার ঝুলিতেই যাবে। যে প্রার্থী অন্তত ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে কমপক্ষে ২৭০টি পাবেন, শেষ বিচারে তিনিই হবেন বিজয়ী। যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বাঙ্গালীদের অধিকাংশ ভোট হিলারি পেয়েছেন।
তবে তরুণ প্রজন্মের ভোটে প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্পকে সমর্থন দিয়েছে। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এবারই প্রথম ৬৫ ভাগ নাগরিক ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রদান করেছেন।
আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন বিশ্ব-বাসীর জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। প্রথমবারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে এক নতুন ইতিহাস গড়লেন ডোনাল ট্রাম্প। যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক ইতিহাসে এতটা জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন আর কখনও দেখা যায়নি। এবারের নির্বাচনকে এযাবতকালের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বলে উল্লেখ করেছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকগণ।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলীয় অঞ্চলে স্থানীয় সময় সকাল ৬টা থেকে এবং পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলে সকাল ৭টা থেকে শুনি হয়েছে ঐতিহাসিক মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ভোটগ্রহণ। বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য ও ওভারসিজ ভোটারদের আগাম ভোট এবং ১শ’ ভোটারের কম জনসংখ্যার ৩টি কেন্দ্রে ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার পর এবার মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে সব অঙ্গরাজ্যে এ ভোট অনুষ্ঠিত হয়।

Comments are closed.