rockland bd

স্ত্রীকে না জানিয়ে নবজাতক বিক্রি!

0

তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি-


তারাগঞ্জে প্রসাব বেদনায় কাতর স্ত্রীকে না জানিয়ে সদ্য ভুমিষ্ট পুত্র সন্তানকে টাকার বিনিময়ে বিক্রির অভিযোগ পিতার বিরুদ্ধে। অতঃপর ৩দিনপর পূর্নরায় মায়ের বুকে ঠাঁই হয়েছে শিশুটির।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের ভীমপুর শাইলবাড়ী গ্রামের কৃষক এজান উদ্দিন (৪৭) এর প্রথম স্ত্রী ৪ বছর পূর্বে ২ ছেলে ও ১ মেয়ে রেখে মারা যায়। প্রায় ৩ বছর পূর্বে কৃষক এজান উদ্দিন নাসরিন নামের (১৭) বছরের এক নাবালিকা মেয়েকে বিয়ে করেন। বিয়ের বছর না পেরোতেই ওই কৃষকের ঘরে এক মেয়ে সন্তানের আসে।

সংসারের অভাব-অটন লেগে থাকার পরেও গত ২২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় বাড়িতেই নরমল ভাবে নাসরিন একটি ফুটফুটে পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়ে অচেতন হয়ে পরেন। পরে নাসরিনের স্বামী কৃষক এজান সদ্য ভুমিষ্ট পুত্র শিশুটিকে উপজেলার পার্শ্ববাতী বদরগঞ্জ উপজেলার সাহাপুর এলাকার শামিমা বেগমকে মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে ওই দিন রাতে টাকার বিনিময়ে শিশুটিকে দিয়ে দেন। পরে ঘটনার দিন রাতে নাসরিনের জ্ঞান ফিরে এলে তার নারীছেড়া ধনকে দেখতে না পেয়ে চিৎকার দিয়ে উঠেন।

পরে নাসরিনের স্বামী সন্তান বিক্রি করার কথা স্বীকার করেন। ঘটনাটি অত্র এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকার লোকজন গত সোমবার বিকালে শামিমার খোঁজ করে শিশু ক্রেতা শামিমাসহ নাসরিনের শিশুটিকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসেন। এদিকে সন্তানের শোকে নাসরিন অচেতন হয়ে স্থানীয় স্বাস্থ্য হাসপাতালে ভর্তি হলে রাত প্রায় সাড়ে ১২টার সময় শিশু ক্রেতা শামিমা শিশুটির মা নাসরিনকে হাসপাতালে গিয়ে তুলে দেন।

তবে শামিমা দাবী করেন, প্রায় ৫-৬ মাস পূর্বে নাসরিন ও তার স্বামী সংসারের অভাবের কারনে রংপুরের একটি বেসরকারী হাসপাতালে নষ্ট করার জন্য যায়। ওই দিন শামিমার সাথে নাসরিন ও তার স্বামী এজাজের সাথে পরিচয় হয়। পরে শিশুটি নষ্ট না করে শামিমা তার এক ভাতজীর সন্তান নেই শিশুটি ভুমিষ্ট হলে তাকে যে কোন বিনিময়ে নিবেন বলে কথার পরিপেক্ষিতে ভুমিষ্ট হওয়ার পর শিশুটিকে তার স্বামী তাদের হাতে তুলে দেন বলে জানান। ঘটনাটির সত্যতা স্বীকার করেন কৃষক এজাজ। যেভাবেই হোক ফুটফুটে পুত্র শিশুটি তার মায়ের কোলে ঠাঁই পেয়েছে।

বাংলাটুডে২৪/প্রবীর কুমার/আর বি

Comments are closed.