rockland bd

শহীদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি চায় পরিবারের সদস্যরা

0

মোঃ ইব্রাহীম, রাজৈর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি
বীরের গৌরব গাথা স্মৃতি ধরে রাখার জন্য দীর্ঘ ৫০ বছর পার হলেও আজো মেলেনি স্বীকৃতি, হয়নি কোন স্মৃতি সৌধ নির্মিত। তাকে দেয়া হয়নি মরনোত্তর উপযুক্ত কোন রাষ্ট্রীয় সম্মান।
১৯৬৯ সালের ১লা ফেব্রুয়ারী অগ্নিঝরা দিনে মহানন্দ সরকার গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুরের জলিরপাড়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে টোল অফিস (পুলিশ ফাড়ি) ঘেরাও করার সময় পাকিস্তানি পুলিশের গুলিতে নির্মমভাবে শহীদ হন। অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র মহানন্দ সরকার। ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে শহীদ মহানন্দ সরকারের মহান আত্মত্যাগের কথা ভুলতে বসেছে বৃহওর ফরিদপুরবাসী ।
কুমত সরকার শহীদ মহানন্দ স্মৃতি সংঘের প্রচার সম্পাদক জানায়, প্রতি বছর ১ ফেব্রুয়ারী শহীদ মহানন্দ সরকারের নিজ বাড়ি রাজৈর উপজেলার পলিতা গ্রামের বাড়িতে এ উপলক্ষ্যে মহানন্দ সরকারের আত্মীয়স্বজন এবং শহীদ মহানন্দ স্মৃতি সংঘের উদ্যোগে একটি শহীদ মিনার তৈরি করে শহীদ মহানন্দের স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং স্মরণ সভা,পদাবলী কীর্তন ও কবিগানের আয়োজন করা হয়।
এ বছরও ১লা ফেব্রুয়ারী গতকাল শুক্রবার সকালে রাজৈর উপজেলা চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সেকান্দার আলী শেখসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা মহানন্দের স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং তার জীবনী নিয়ে আলোচনা করেন।
১৯৬৯এর গণ আন্দোলনের সময় ছাত্র-জনতা জলিরপাড়ে আন্দোলন শুরু করেন। কিন্তু তৎকালীন জলিরপাড় ইউপি চেয়ারম্যান নিত্যরঞ্জন মজুমদার প্রভাবশালী মুসলিমলীগ নেতা নওয়াব আলী মিয়া ও মুকুন্দ বালা তাদের আন্দোলন করতে বাধা দেন। এর প্রতিবাদে ১ ফেব্রুয়ারী জলিরপাড় স্কুলের শিক্ষক ও কমিউনিস্ট নেতা সত্যেন্দ্রনাথ বারুরীর নেতৃত্বে ছাত্র সমাজ বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয়। এদিন সকাল থেকে মাদারীপুরের খালিয়া, উল্লাবাড়ী, মুকসুদপুরের বেদগ্রাম, ননীক্ষির, গোহালা, বানিয়ারচর থেকে প্রায় ২ হাজার ছাত্র জনতা জলিরপাড় বাজারে এসে জমায়েত হয় । দুপুর ১২টার দিকে বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা তোমার আমার ঠিকানা-পদ্মা মেঘনা যমুনা, তোমার দেশ আমার দেশ বাংলাদেশ, বাংলাদেশ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার কর করতে হবে- ইত্যাদি শ্লোগান দিয়ে মিছিল শুরু করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। ছাত্ররা পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মিছিল করতে গেলে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও লাঠিচার্জ করে তাতেও ছাত্র জনতাকে হটাতে নাপেরে পুলিশ এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ শুরু করে। এ সময় মহানন্দ সরকার গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হয় । তখন তিনি ছিলেন মাদারীপুরের রাজৈর রাজারাম ইনস্টিউশনের অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র।
রাকিব/২/২/১৯

Comments are closed.