rockland bd

মার্কিন অবরোধকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে ইরান-উ.কোরিয়া বৈঠক

0

বিদেশ, আল জাজিরা


যুক্তরাষ্ট্র ইরানের ওপর নতুন করে আবারো অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপের পর দেশটিতে সফরে গেছেন উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো। তিনি মঙ্গলবার তেহরান পৌঁছে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।  উভয় নেতা মার্কিন অবরোধে জর্জড়িত দেশ দুটোর মধ্যেকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরো জোরদার করারও অঙ্গীকার করেছেন।


মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একদিকে যেমন উত্তর কোরিয়ার ওপর পারমানবিক ইস্যুতে চাপ অব্যাহত রাখার ঘোষনা দিয়েছেন অন্যদিকে ইরানের ওপর অবরোধ আরোপ করে চলেছেন। এমন পরিস্থিতিতে মার্কিন অবরোধে জর্জরিত ইরান ও উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ দুই কূটনীতিক বৈঠকে মিলিত হলেন।
আল জাজিরার সাংবাদিক জেইন বসরাভির কাছে বৈঠকের এ সময়টি কাকতালীয় বলে মনে হয়নি।
”ইরান যুক্তরাষ্ট্রকে জানাতে চায়, সবখানেই তাঁর বন্ধু রয়েছে”। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক টুইট বার্তায় মঙ্গলবার বলেন, ট্রাম্পের টুইট বার্তা বিশ্ব পরিস্থিতিতে পরিবর্তন আনবে না এবং মার্কিন নীতি ও সিদ্ধান্তে বিশ্ব অসুস্থ ও ক্লান্ত হয়ে পড়েছে।
জাভেদ জারিফ বলেন, ইরানের সঙ্গে বাণিজ্য বন্ধ কিংবা কর্মসংস্থান বন্ধ না হয় বোঝা গেল কিন্তু বিশ্ব আর মার্কিন প্রেসিডেন্টের আবেগপ্রবণ টুইট খবরদারি দেখতে চায় না। এ ব্যাপারে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ইউরোপিয় ইউনিয়ন, রাশিয়া, চীন ও ইরানের শতশত বাণিজ্যিক অংশীদারদের জিজ্ঞেস করে দেখার তাগিদও দেন জাভেদ জারিফ।
জারিফ আরো বলেন, এই প্রথম নয় যে কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট শান্তির জন্যে যুদ্ধের প্ররোচনা দিচ্ছেন। বরং মার্কিন এ বাসনা দেখতে দেখতে দুনিয়া ক্লান্ত হয়ে পড়েছে।
ট্রাম্প তার টুইট বার্তায় হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, কেউ ইরানের সঙ্গে বাণিজ্য করার মানেই হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তা না করা। একই সঙ্গে ইরানের সঙ্গে নতুন করে আলোচনায় বসতে ট্রাম্পের ইচ্ছা প্রকাশের ব্যাপারে দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেন, ‘আপনি যদি শত্রু হয়ে কারো পিঠে ছুরিকাঘাত করে থাকেন এবং তার সঙ্গে দরকষাকষির কথা বলেন, তার আগে আপনার উচিত পিঠ থেকে ছুরিটি বের করে নেয়া।
বৈঠকে মন্ত্রীরা উভয় দেশের বিদ্যমান সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ইরান ও উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসহ আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ইস্যু নিয়েও আলোচনা করেন।
চলতি বছরে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার করতে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো রাশিয়া, চীন, আজারবাইজান, তুর্কমেনিস্তান, তাজিকিস্তান ও সুইডেন সফর করেন।
উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির দ্বিতীয় মেয়াদে এটা উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ পর্যায়ের কোনো কর্মকর্তার প্রথম সফর। এছাড়া, উত্তর কোরিয়ার নেতার সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিঙ্গাপুরে বৈঠক হওয়ার পর পিয়ংইয়ংয়ের কোনো গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তার এটা ইরানে প্রথম সফর। এ সফরের জন্য উত্তর কোরিয়ার পক্ষ অনুরোধ ছিল।

বাংলাটুডে২৪/আর এইচ

Comments are closed.