rockland bd

মানুষের মতো দাঁতওয়ালা মাছ!

0

শিপহেড মাছ

বিটি২৪ ডেস্ক

হাঁস আর সজারু মিলে হাঁসজারুর কল্পিত ছবি ছড়ায় এঁকেছিলেন প্রখ্যাত ছড়াকার সুকুমার রায়। তবে এমন কিছু উদ্ভট যে প্রকৃতিতেও ঘটছে তার একটা উদাহরণ মিলেছে যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারেলিনায়। এই প্রথমবারের মতো সেখানে একটি অদ্ভুত ধরনের মাছ পাওয়া গেছে। এই মাছটির মাথা দেখতে অবিকল ভেড়ার মতো। আর বাকি শরীরের সঙ্গে পিরানহার মিল। বিজ্ঞানীরা এজন্য এই মাছের নাম দিয়েছেন ‘শিপহেড’ মাছ।

তবে এরচেয়েও দৃষ্টি আকর্ষণকারী বিষয় হচ্ছে কার্টুন ছবিতে মাছের দাঁত দেখতে যেমন মানুষের মতো হয় এই মাছটির ও দাঁতও দেখতে তেমনই। মানুষের মতো ওপরের পাটিতে এক সারি আর নিচের পাটিতে এক সারি দাঁত রয়েছে প্রাণীটির। আর মুখের ভেতরের দাঁতগুলো অবিকল মানুষের দাঁতের মতো। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

সংবাদ সংস্থাটি জানিয়েছে, নাথান মার্টিন নামে এক ব্যক্তি ঘাটে মাছটি নিয়ে আসেন। মাছটির মুখ ভেড়ার মুখের মতো দেখতে। জেনেটস পিয়ার নামে একব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ওই মাছের ছবি পোস্ট করলে তা ভাইরাল হয়ে যায়।

এদিকে জেনেটস পিয়ারের পোস্টটি ভাইরাল হওয়ার পর মাছটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মজা করেছেন অনেকেই। একজন ব্যবহারকারী মজা করে প্রশ্ন করেছেন, ‘এখান থেকেই কি মানুষের দাঁতের উদ্ভব?’

অন্য একজন ব্যবহারকারী মন্তব্য করেছেন, ‘এই মাছের আমার চেয়ে ভালো দাঁত আছে।’

মার্টিন বলেন, “তিনি একটি শিপহেড মাছ ধরার চেষ্টা করছিলেন। যখন মাছটি তার সামনে আসে তখন বেশ লড়াই করছিল। এটি সত্যিই একটি ভালো শিকার এবং এটির স্বাদ খুব ভালো।”

গভীর সমুদ্রে অবশ্য এমন অনেক বিস্ময়ই আছে। এমন দাঁতঅলা মাছ মানুষের হাতে ‍শিকার এবারই প্রথম নয়। যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী সায়েন্টিফিক আমেরিকার নিবন্ধে বলা হয়েছে, নর্থ ক্যারেলিনা ও ফ্লোরিডার উপকূলে মাঝেমধ্যেই অবিকল মানুষের দাঁতের মতো দাঁতওয়ালা এ ধরনের মাছের দেখা পাওয়া যায়।

এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোয় এমন একটি মাছ জেলেদের জালে ধরা পড়েছিল। তখন জেব্রার মতো গায়ে ডোরাকাটা ও মানুষের দাঁতের মতো দাঁতওয়ালা মাছটি নিয়ে বেশ শোরগোল পড়েছিল। তারও আগে এমন মাছের দেখা পাওয়া গিয়েছিল মালয়েশিয়ার উপকূলে।

প্রাণিবিজ্ঞানীদের মতে, এ জাতের মাছ সর্বভুক। এ ধরনের দাঁত নানা ধরনের খাদ্যগ্রহণে সাহায্য করে। একেকটি শিপহেড মাছের ওজন আড়াই থেকে সাত কেজি পর্যন্ত হতে পারে। এই প্রজাতির মাছ সামনের সারির বড় আকারের দাঁতগুলো শামুক, ঝিনুকের খোলস ভাঙার কাজে ব্যবহার করে।

/টিএন/

Comments are closed.