rockland bd

ধনবাড়ীতে শিক্ষক পিটালেন ইউপি চেয়ারম্যান

0

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে এক ইউপি চেয়ারম্যান শিক্ষককে পিটিয়ে আহত এবং শারীরিক ও মানসিকভাবে লাঞ্ছিত করেছেন।
জানা যায়, ধনবাড়ী উপজেলার বানিয়াজান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল আলম তালুকদার বাবুলের হাতে শারীরিক লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন।
এ ঘটনায় লাঞ্ছনার শিকার শিক্ষকের সহকর্মী ও স্থানীয়রা বিক্ষোভ করে বিচার চেয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে। তারা ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে ন্যাক্কারজনক এ ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং সুষ্ঠু বিচার দাবিতে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন। এর আগে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক (ডিসি) বরাবরও এ ব্যাপরে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।
স্মারকলিপি দেয়ার আগে সমাবেশে সহকারি শিক্ষক হাবিবুর রহমান, আনোয়ারা বেগম ও দেলোয়ারা বেগম সহ অন্যান্য বক্তরা বক্তব্যে বলেন- সামছুল আলম তালুকদার বাবুল চেয়ারম্যান শিক্ষক পিটানোর ঘটনার আগেও বানিয়াজান বাসস্ট্যান্ড এলাকার ঘোনাপাড়া গ্রামের রফিক মাষ্টারের প্রাবাসী ছোট ভাইয়ের স্ত্রীর সাথে অবৈধ মেলামেশা করার সময় স্থানীয় জনতার হতে আটক হন। পরে চেয়ারম্যান বাবুল কে ধনবাড়ী থানা পুলিশে সোপর্দ করেন। এনিয়ে জাতীয় দৈনিক মানবজমিন সহ স্থানীয় পত্রিকা এবং বিভিন্ন অনলাইন গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। তার কিছু দিন পরেই বানিয়াজান খানপুর গ্রামের এক গৃহবধুকে কু-প্রস্তাব দেয় বাবুল চেয়ারম্যান তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে মারপিট করেন । এনিয়ে রূপসা নিউজ ২৪ ডটকম সহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। এছাড়াও বাবুল চেয়ারম্যান একজন নেশাগ্রস্থ ব্যাক্তি। শুধু তাই নয় বাবুল চেয়ারম্যান তার ২ ছেলে সন্তান সহ স্ত্রী রেখে আরো কলেজ ছাত্রী সহ তিনটি বিয়ে করেন। বলদী আটা বাজারে বাবুল তালুদার গ্রামীন পল্লী চিকিৎসকের ফামের্সীর দোকান করার সময় নলদাইর গ্রামের এক মেয়ে কে চিকিৎসা করতে গিয়ে অবৈধ মেলামেশা করার ফলে গর্ববতী হয়। তাকে এঘটনায় এলাকাবাসী বেধড়ক মারপিট ও কুপিয়ে আহতে করেন । এই কুলাঙ্গার চেয়ারম্যান বাবুল তালুকদারের উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেন।
স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, বানিয়াজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নুরুল ইসলামের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগবিধির শেষ ধাপ অতিক্রম হয়েছে গত ৭ জানুয়ারি। এ সময়ে বানিয়াজান ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল আলম তালুকদার বাবুলের ভাগ্নে চৌধুরী গোলাম মুক্তাদির ওরফে তানজিল বিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজের বিদ্যুৎ লাইন থেকে অবৈধ সংযোগ নিয়ে নলকূপে পানি তুলতেন।
নৈশ প্রহরী কাম দপ্তরী নুরুল ইসলাম বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অগোচরে বন্ধু তানজিল চৌধুরীকে সহযোগিতা করতেন। এ নিয়ে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের কাছে। স্কুল ক্যাম্পাসে নেশার আসর বসানোর অভিযোগও আছে নুরুলের বিরুদ্ধে। পূর্বাপর এমন নানা বিতর্কিত ও নেতিবাচক কাজে বিদ্যালয়ের এসএমসিসহ সংশ্লিষ্টরা নুরুল ইসলামের চাকরি (নিয়োগবিধি অনুযায়ী) নবায়নের সুপারিশ করেনি। এমনকি স্বপদে থাকতে নুরুল ইসলাম বিধিমতে আবেদনও করেননি। ফলে গত ৩১ জানুয়ারি সংশ্লিষ্টরা মিটিং এ তাকে নবায়নের সুপারিশ থেকে বিরত থাকেন।
এ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় নুরুল ইসলামের পক্ষে বন্ধু তানজিল চৌধুরীর মামা চেয়ারম্যান সামছুল আলম তালুকদার বাবুল গত ২ ফেব্রুয়ারী পরিষদে ডেকে নেন প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামকে। ডেকে নিয়ে তিনি নুরুল ইসলামের চাকরি নবয়ানের সুপারিশের ব্যবস্থা করতে বললে প্রধান শিক্ষক বিধিবিধানের বিষয় উল্লেখ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে চেয়ারম্যান সামছুল তালুকদার বাবুল অনেকেরই সামনে প্রধান শিক্ষককে মারপিট করে। এ নিয়ে এলাকায় তীব্র ক্ষেভের সৃষ্টি হয়েছে।
এ ব্যাপারে চেয়ারম্যানের বক্তব্য পেতে বার বার মুঠোফোনে চেষ্টা করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি।
ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফা সিদ্দিকা স্মারকলিপি পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। এব্যাপারে গতকাল ধনবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। জিডি নং- ২৪৪।
রানু/৮/২/২০

Comments are closed.