rockland bd

গোবিন্দগঞ্জে অর্থের বিনিময়ে বিদ্যালয়ের বুকলিষ্টে সহায়ক বইয়ের নাম

0

শাহজাহান সিরাজ, গাইবান্ধা থেকে
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের বিভিন্ন শ্রেণির বুকলিষ্টে শিক্ষা সহায়ক পাঠ্য পুস্তুক হিসেবে প্রকাশনীর নিকট থেকে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে নিম্নমানের সহায়ক বই শিক্ষার্থীদের উপর চাপিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বিদ্যালয়ের ৪/৫ জন শিক্ষক শ্রেণি কক্ষে শিক্ষা সহায়ক পাঠ্য পুস্তুক ক্রয়ের জন্য বুকলিষ্ট বিতরণ করেন। তাতে পাঞ্জেরী পাবলিকেশনের ‘অক্ষরপত্র’ নামে বাংলা ব্যাকরণ ও ইংরেজী গ্রামার বইয়ের নাম রয়েছে। শিক্ষার্থীদের নিকট বুকলিষ্ট বিতরণকারী শিক্ষকরা হচ্ছেন, পদার্থ বিজ্ঞানের শিক্ষক শিশির কুমার সিংহ, তথ্য ও প্রযুক্তির শিক্ষক এরম-ই জুলফিকার, কাব্যতীর্থ শিক্ষিকা নুপুর রাণী। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিদ্যালয়ের ষষ্ট থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় দুই হাজার ছাত্রছাত্রী অধ্যায়ন করছেন। এসব শিক্ষার্থীদের হাতে পাঞ্জেরী পাবলিকেশনের এসব সহায়ক বই তুলে দিতে প্রকাশণীর নিকট থেকে মোটা অংকের অর্থ নিয়েছেন কথিত শিক্ষকরা।
সূত্রমতে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিতে ওই শিক্ষকদেরকে গত ১৯ জানুয়ারী দুপুরে স্কুলে এসে প্রকাশণীর স্থানীয় প্রতিনিধি আবুল কালাম আজাদ প্রায় ৩ লক্ষ টাকা অনুদান হিসেবে প্রদান করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক জানান, এ টাকা সবার মধ্যে বন্টন করা হয়। টাকা বন্টনে অষন্তোষ ও মানহীন বই হওয়ায় কয়েকজন শিক্ষক টাকা গ্রহন করেননি। তবে এসব অভিযোগ সঠিক নয় বলে অভিযুক্ত শিক্ষকরা দাবী করলেও বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোকাররম হোসেন রানা জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি। এ দিকে প্রকাশণীর প্রতিনিধি আবুল কালাম আজাদ শিক্ষকদের টাকা দেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন।
এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি রামকৃষ্ণ বর্মন বলেন, আমি বিষয়টি জেনেছি। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
রাকিব/৬/২/১৯

Comments are closed.